শাহজাদপুরে বাউত উৎসবে মাছ ধরার ধুম

ঢাকা, সোমবার   ১২ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৯ ১৪২৭,   ২৮ শা'বান ১৪৪২

শাহজাদপুরে বাউত উৎসবে মাছ ধরার ধুম

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:০৩ ৬ মার্চ ২০২১  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে করতোয়া নদীতে ঐতিহ্যবাহী বাউত উৎসবে মেতে উঠেছেন সৌখিন মৎস্য শিকারিরা। উপজেলার নরিনা ইউপির বাতিয়া গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া করতোয়া নদীতে শনিবার সকাল থেকে শুরু করে বিকেল পর্যন্ত মাছ শিকারে মেতে ওঠেন তারা।

উৎসব আমেজে দেশীয় প্রজাতির মাছ যেমন, কৈ, বোয়াল, শোল, গুজা, চিতল, রুই, কাতলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরে আনন্দে বাড়ি ফেরেন তারা। এভাবেই একের পর এক নদীতে মাছ শিকারে মেতে থাকবে শৌখিন মৎস্য শিকারীরা।

করতোয়া, ফুলঝোড়, হুরাসাগর, গোহালা নদীবেষ্টিত শাহজাদপুর এবং চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিল-ঝিলের মাছ শিকার করা এলাকার অপেশাদার ও শৌখিন মাছ শিকারিদের রেওয়াজ হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে শুষ্ক মৌসুমে নদী-নালার পানি যখন কমে যায় তখন একটি দিন নির্ধারণ করে বিভিন্ন গ্রাম থেকে শৌখিন মাছ শিকারিরা একত্রিত হয়ে উৎসবে মেতে ওঠেন। মূলত শাহজাদপুরের বিভিন্ন নদ-নদীতে দেশীয় মাছের প্রাচুর্যের কারণেই বিভিন্ন উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ শিকার করতে আসা লোকজন জমিয়ে তোলেন মাছ শিকারের ক্ষেত্রগুলো।

শৌখিন মাছ শিকারিরা হাত পলো, জাল পলো, ধর্ম জাল, ঠেলা জাল, বাদাই জাল, লাঠি জাল, ডোরা জাল, খেয়া জাল, ঘের জালসহ নানা মাছ ধরার উপকরণ নিয়ে নেমে পড়েন।

স্থানীয়রা জানায়, কবে কোন বিলে মাছ ধরা হবে তা ঠিক করে এলাকায় মাইকিং করে দেয়া হয়। আর মুঠোফোনের কল্যাণে সে খবর চলে যায় দূর-দূরান্তে। নির্দিষ্ট দিনে তাই শত কাজ ফেলে চলে আসেন মৎস্য শিকারীরা।

উপজেলার বেলতৈল ইউনিয়ন থেকে আসা মৎস্য শিকারী রহিজ আলী জানান, ছোটবেলা থেকেই তিনি বাউত উৎসবে মাছ ধরে আসছেন। তবে দিন দিন মাছের সংখ্যা কমে যাওয়ায় উৎসবের আনন্দে ভাটা পড়ছে।

নরিনা ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক জানান, নদীতে মাছ ধরা বাউত উৎসবটি প্রাচীন গ্রামবাংলার ঐতিহ্য। প্রতি বছরই এখানে এই বাউত উৎসবে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম