আলুতে হাসছে কৃষক

ঢাকা, সোমবার   ১৯ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৬ ১৪২৮,   ০৬ রমজান ১৪৪২

আলুতে হাসছে কৃষক

মাসুম হোসেন, বগুড়া ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:১৮ ৬ মার্চ ২০২১  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। মাঠের আলু এখন বিক্রি হচ্ছে গ্রামের রাস্তাঘাটে। আলুর বর্তমান বাজারমূল্যে কৃষকরা বেশ খুশি। আলুর ভালো ফলনের কারণে হাসি ফিরে এসেছে কৃষকের মুখে। 

উপজেলা কৃষি অফিস ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবারের রবি মৌসুমে উপজেলায় ৪ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের ১ লাখ ২১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিলো। কিন্তু ৩ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে আলুর চাষাবাদ করা হয়েছে। মাঠের জমি থেকে আলু তোলার কাজ পুরোদমে চলছে। এদিকে আলুর পাইকাররা হাট-বাজারে না গিয়ে বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে রাস্তাঘাট থেকে আলু ক্রয় করছেন। কৃষকরাও গ্রামে থেকেই সুবিধাজনকভাবে আলু বিক্রি করতে পারছেন। বর্তমান আলুর পাইকারি বাজারমূল্য ১০ থেকে ১২ টাকা কেজি। এ উপজেলায় ডায়মন্ড, কার্ডিনাল, এস্ট্রিকস ও পাকড়ি জাতের আলু চাষ হয়।

উপজেলার বীরপলি গ্রামের কৃষক রুহুল আমিন। তিনি এবার ১০০ বিঘা জমিতে আলুর চাষ করেছেন। মুরাদপুর গ্রামের কৃষক রণজিৎ কুমার তিনি ৩০ বিঘা জমিতে আলুর চাষ করেছেন।

তারা জানান, উপজেলার ফসলি জমির মাটিতে উর্বরশক্তি অনেক বেশি থাকায় বছরে ৩ বার ধান চাষাবাদের পাশাপাশি রবিশস্য চাষাবাদ করা হয়। এবারে আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। বিঘা প্রতি ১২০ থেকে ১৩০ মণ আলু পাওয়া যাচ্ছে। এক বিঘা জমিতে থেকে এবার ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা লাভ হবে।

জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আদনান বাবু বলেন, উপজেলায় আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষকরা এবার অনেকটা লাভবান হবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম