চাঁদাবাজি-হত্যাসহ ১১ মামলার আসামি ছাত্রদল নেতা, অবশেষে গ্রেফতার

ঢাকা, রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৭ শা'বান ১৪৪২

চাঁদাবাজি-হত্যাসহ ১১ মামলার আসামি ছাত্রদল নেতা, অবশেষে গ্রেফতার

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৩৮ ৪ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৪:৩৩ ৪ মার্চ ২০২১

১১ মামলার আসামি ছাত্রদল নেতা  মহিউদ্দিন-ফাইল ফটো

১১ মামলার আসামি ছাত্রদল নেতা মহিউদ্দিন-ফাইল ফটো

কুমিল্লায় হত্যাসহ ১১টি মামলার আসামি ছাত্রদল নেতা মহিউদ্দিনকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ওই ছাত্রদল নেতা নগরীর ১২ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর চর্থা এলাকার তফাজ্জল হোসেন ইদু মিয়ার ছেলে। তার বিরুদ্ধে বিজিবি সদস্য রিপন হত্যা, একাধিক ব্যক্তিকে হত্যার চেষ্টা, ছিনতাই, অস্ত্র, মাদক, নাশকতাসহ ১১টি মামলা রয়েছে।

বুধবার দুপুরে চাঁদাবাজির নতুন একটি মামলায় তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এসব তথ্য জানান কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মো. আনোয়ারুল হক।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ও কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নগরীতে ছিনতাইকারী ও একটি চোর সিন্ডিকেটের প্রধান হিসেবে পুলিশের তালিকায় মহিউদ্দিনের নাম রয়েছে শীর্ষে। ২০১৩ সালের ২৬ নভেম্বর বিকেলে বিজিবি সদস্য রিপন হত্যা, ২০১৪ সালে এক গরু ব্যবসায়ীর ৩১ লাখ টাকা ছিনতাই ও ২০১০ সালে এক কলেজ শিক্ষকের টাকা ছিনতাইসহ নগরীতে কয়েকটি আলোচিত ছিনতাইয়ের মধ্য দিয়ে শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় স্থান পায় তার নাম। তার নেতৃত্বে নগরীতে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপের সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে নগরীতে একাধিক ছিনতাই ছাড়াও প্রকাশ্যে গুলি চালিয়ে হত্যার চেষ্টা, মাদক ব্যবসা, অস্ত্র নিয়ে বাসা-বাড়িতে হামলা, নাশকতাসহ আরো অনেক ঘটনা ঘটে। অনেকেই ভয়ে মামলা করার সাহস পেত না। গত বছরের ২২ জুন রাতে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১০, ১১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর রুমা আক্তার সাথীর নগরীর নানুয়াদিঘীর পাড় এলাকার বাড়িতে দলবল নিয়ে মহিউদ্দিন গুলি ও হামলা চালায়।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, কয়েকটি ঘটনায় তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হলেও জামিনে এসে পুনরায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে যায় মহিউদ্দিন। সর্বশেষ সন্ত্রাসী মহিউদ্দিন নগরীর উত্তর চর্থার নবাব বাড়ি চৌমুহনী এলাকার ছাব্বির আহম্মদ শুভ নামের এক ব্যবসায়ীর কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না পেয়ে গত মঙ্গলবার রাতে (২ মার্চ) মহিউদ্দিন তার লোকজন নিয়ে ওই ব্যবসায়ীর বাড়িতে গিয়ে হামলা ও ভাঙচুরসহ পরিবারের সদস্যদের মারধর করে। এ ঘটনায় ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী নুসরাত ফারহানার লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার গভীর রাতে ডিবি ও থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে মহিউদ্দিনকে গ্রেফতার করে।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল হক জানান, নগরীর একজন ব্যবসায়ীর কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে মহিউদ্দিনকে দুপুরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিজিবি সদস্য রিপন হত্যা, নাশকতা, ছিনতাই, অস্ত্র, মাদক, হত্যার চেষ্টাসহ ১১টি মামলা রয়েছে। এসব মামলায় সে জামিনে থাকলেও তার বিরুদ্ধে আসা অন্যান্য অভিযোগও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/এইচএন