আখাউড়ায় স্যালাইন সংকট, ভোগান্তিতে রোগীরা 

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২২ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৯ ১৪২৮,   ০৯ রমজান ১৪৪২

আখাউড়ায় স্যালাইন সংকট, ভোগান্তিতে রোগীরা 

আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৫৫ ২ মার্চ ২০২১  

আখাউড়া উপজেলায় আবহাওয়াজনিত কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে।

আখাউড়া উপজেলায় আবহাওয়াজনিত কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় আবহাওয়াজনিত কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের লোকজন।  

গত ১০ দিনে অন্তত দেড় শতাধিক রোগী ডায়রিয়ার আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। এসব রোগীর মধ্যে বেশিরভাগই শিশু ও বয়স্ক রয়েছেন। 

এদিকে ডায়রিয়া প্রকোপ দেখা দেয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্যালাইনের সংকট দেখা দিয়েছে। গত প্রায় ১০ দিন ধরে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কলেরার স্যালাইন না থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন রোগীরা। 

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, নারী ও পুরুষ ওয়ার্ডে অন্তত ১৭ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়া রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগই রয়েছেন বয়স্ক ও শিশু। এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কলেরার স্যালাইন না থাকায় ভোগান্তিতে পড়ছেন চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা। 

এদিকে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে  ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। তবে হাসপাতালে ওরস্যালাইন, ট্যাবলেটসহ অন্যান্য ওষুধ থাকলেও কলেরার স্যালাইনের সংকট রয়েছে। 

পৌর শহরের রাধানগরের সাহা পাড়ার ঝর্ণা আক্তার বলেন, গত দুই দিন ধরে খোজাইফা নামে তার ১ বছর বয়সী ছেলে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। প্রাথমিকভাবে স্থানীয় ফার্মেসি থেকে ওষুধ নিয়ে খাওয়ার পরও না কমায় তাকে সোমবার হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু ভর্তির পর হাসপাতালে কোনো স্যালাইন না পাওয়ায় বাহির থেকে কিনে এনে তাকে দেয়া হয়। এখন আগের চেয়ে তার মেয়ের অবস্থা অনেকটাই ভালো বলে জানান। 

বিজয়নগরের হিরাতলা গ্রামের মাহাবুব বলেন, তার ভাই জুবায়ের গত ৫ দিন ধরে ডায়রিয়ায় ভুগছে। প্রাথমিকভাবে ওষুধ খাওয়ানো হলেও ভালো না হওয়ায় সকালে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এই হাসপাতালে তারা কোনো স্যালাইন পায়নি বলে জানান। চিকিৎসকরা বাহির থেকে কিনে আনতে বলায় ১টি স্যালাইন আনা হয়। তবে অন্যান্য ওষুধ হাসপাতাল থেকে পেয়েছেন বলে জানান। এখন অনেকটাই ভালো আছে। 

পৌর শহরের দেবগ্রাম এলাকার গৃহবধূ মোছা. মারুফা আক্তার বলেন, তার ৯ মাস বয়সী ছেলে মুজাহিদ ডায়রিয়া আক্রান্ত হওয়ায় তিনি গতকাল হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন। ডাক্তার বলেছেন, বড় কোনো সমস্যা হয়নি। তবে হাসপাতালে কোনো স্যালাইন পাননি বলে জানান। আগের থেকে অনেক ভালো আছে তার সন্তান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শ্যামল চন্দ্র ভৌমিক বলেন, আবহাওয়া জনিত কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। হাসপাতালে কলেরা স্যালাইন সংকটের বিষয়ে তিনি বলেন, এই হাসপাতালে গত  ৭-৮ দিন ধরে কলেরার কোনো স্যালাইন নেই। 

তিনি বলেন, সংকটের বিষয়টি লিখিতভাবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যে স্যালাইন চলে আসলে এ সংকট থাকবে না। তাছাড়া অন্যান্য ওষুধ পর্যাপ্ত রয়েছে। রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের ক্ষেত্রে কোনো গাফিলতি নেই। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে