মুক্তিযোদ্ধার ফসলি জমির মাটি লুট করল জাপা নেতা!  

ঢাকা, শনিবার   ১৭ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৪ ১৪২৮,   ০৪ রমজান ১৪৪২

মুক্তিযোদ্ধার ফসলি জমির মাটি লুট করল জাপা নেতা!  

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৯ ২ মার্চ ২০২১  

নিরীহ মানুষের জমির মাটি ভেকু দিয়ে কেটে নিয়ে ইটভাটায় বিক্রি

নিরীহ মানুষের জমির মাটি ভেকু দিয়ে কেটে নিয়ে ইটভাটায় বিক্রি

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউপির কাহেনা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম মোল্লার ফসলি জমির মাটি লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে জাতীয় পার্টি নেতা আবু তালেব চৌধুরী জিসানের বিরুদ্ধে। 

গত কয়েকদিন ধরে মুক্তিযোদ্ধার ১০ শতাংশ জমির মাটিসহ ওই এলাকার নিরীহ মানুষের জমির মাটি ভেকু দিয়ে কেটে নিয়ে ইটভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে। মাটি লুটের বিষয়ে প্রতিবাদ করলে হামলার শিকার হতে হয় বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম মোল্লা বাদী হয়ে তালতলা ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম মোল্লা অভিযোগ করেন, সোনারগাঁ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ওটমা এলাকার নূর মোহাম্মদ চৌধুরীর ছেলে আবু তালেব চৌধুরী জিসান তার সহযোগী পেরাব গ্রামের আবদুল করিমের ছেলে মোখলেছুর রহমানসহ ৪-৫ জনের একটি সিন্ডিকেট কাহেনা মৌজায় ১০ শতাংশ জমির মাটি ভেকু দিয়ে কেটে ইট ভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে। ভেকু দিয়ে মাটি কাটার ফলে ওই জমি পুকুরে পরিণত হয়ে যাচ্ছে। ফলে ওই জমি অনাবাদী হয়ে পড়ছে। 

মুক্তিযোদ্ধার জমি ছাড়াও পার্শ্ববর্তী অনেক কৃষকের জমির মাটি গভীরভাবে কেটে লুট করে নিয়ে গেছে। ফলে পার্শ্ববর্তী জমিতে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে হামলার শিকার হতে হয়।
 
এলাকাবাসীর অভিযোগ, জিসান চৌধুরী এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে অসহায় কৃষকের জমিতে রাতের বেলায় ভেকু লাগিয়ে এলোমেলোভাবে মাটি কেটে নিয়ে যায়। পরে এ বিষয়ে কথা বললে নামে মাত্র টাকার বিনিময়ে মাটি বিক্রি করতে বাধ্য করে। 

কাহেনা গ্রামের আবু বকর সিদ্দিক বলেন, প্রতিবছর এ চকে কৃষকের জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রি করে দিচ্ছে প্রভাবশালীরা। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করে কোনো ফল পাওয়া যায় না। প্রশাসনের লোক দেখানো অভিযান চলার পর পুরোদমে চলে মাটি লুট। 

আবু তালেব চৌধুরী জিসান বলেন, জমির মাটি কাটার সঙ্গে আমি জড়িত না। ওই এলাকার ফারুক নামে একজন পার্শ্ববর্তী জমির মাটি কিনে নেয়ায় মুক্তিযোদ্ধার জমিতে ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। এ জমি ঠিক করে দেয়ার কথা রয়েছে।  

তালতলা ফাঁড়ি পুলিশের ইনচার্জ আহসানউল্লাহ বলেন, মুক্তিযোদ্ধার অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটি কাটার কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। 

সোনারগাঁ ইউএনও মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এসিল্যান্ডকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অবৈধভাবে কৃষকের ফসলি জমির মাটি কোনোভাবেই কেটে নিতে দেয়া হবে না।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে