খুলনায় সরকারি খাস জমি প্লট আকারে বিক্রি!

ঢাকা, সোমবার   ১২ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৯ ১৪২৭,   ২৮ শা'বান ১৪৪২

খুলনায় সরকারি খাস জমি প্লট আকারে বিক্রি!

খুলনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৪৪ ১ মার্চ ২০২১  

দখল হয়ে যাওয়া খাস জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে দিয়েছে ডুমুরিয়া উপজেলা ভূমি অফিস। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে খাস তালিকাভুক্ত জমির তত্ত্বাবধায়ক খুলনা জেলা প্রশাসক।

দখল হয়ে যাওয়া খাস জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে দিয়েছে ডুমুরিয়া উপজেলা ভূমি অফিস। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে খাস তালিকাভুক্ত জমির তত্ত্বাবধায়ক খুলনা জেলা প্রশাসক।

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় সরকারি খাস জমি প্লট আকারে বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তনিশা প্রোপার্টিজ ও নজরুল নগর আবাসিক প্রকল্প খাস জমি প্লট আকারে বিক্রি করে হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা। তনিশা প্রোপার্টিজের মালিক শফিকুল ইসলাম ও বাহা উদ্দিন এবং নজরুল নগরের মালিক নজরুল ইসলাম ঢালী।

রোববার দখল হয়ে যাওয়া খাস জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে দিয়েছে ডুমুরিয়া উপজেলা ভূমি অফিস। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে খাস তালিকাভুক্ত জমির তত্ত্বাবধায়ক খুলনা জেলা প্রশাসক।

জানা গেছে, তনিশা প্রোপার্টিজ ডুমুরিয়ার বিলপাবলা মৌজার ১ নম্বর খতিয়ানের ৪০১৬১ দাগের ১৭৭ শতক জমি ভরাট করে প্লট আকারে বিভিন্ন গ্রাহকের কাছে বিক্রি করেছে। এছাড়া নজরুল নগর চকআসান খালী মৌজার ১ নম্বর খতিয়ানের ১২৫৩ দাগের ৪ একর ৫৬ শতক জমি ভরাট করে প্লট আকারে বিক্রি করেছে।

ডুমুরিয়া উপজেলা ভূমি অফিস কর্তৃক এর আগে আবাসিক প্রকল্প ২টিকে মৌখিকভাবে জমি দখল থেকে সরে যাওয়ান জন্য সতর্কতাসহ জমিতে লাল পতাকা টানানো হয়েছিলে। কিন্তু কর্তৃপক্ষকে তোয়াক্কা না করে তারা রাতের আঁধারে লাল পতাকা ফেলে দেয়। যার প্রেক্ষিতে রোববার ডুমুরিয়া উপজেলা ভূমি অফিস জমি দুটিতে প্রশাসনের সাইন বোর্ড বসিয়ে দেয়।

ডুমুরিয়ার ইউএনও মো. আবদুল ওয়াদুদ বলেন, সরকারি জমি দখলের চেষ্টাকে প্রতিহত করা হয়েছে। এরপর আর কেউ যদি এভাবে দখলের চেষ্টা করে তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে যেই হোক।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে