স্বেচ্ছাশ্রমে ভাঙা সড়ক সংস্কার করলেন ৩০ যুবক

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১,   ফাল্গুন ১২ ১৪২৭,   ১২ রজব ১৪৪২

স্বেচ্ছাশ্রমে ভাঙা সড়ক সংস্কার করলেন ৩০ যুবক

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৪৩ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ২০:৪৪ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে ৩০ যুবক স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত একটি সড়ক সংস্কার করেছেন। 

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে ৩০ যুবক স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত একটি সড়ক সংস্কার করেছেন। 

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে ৩০ যুবক স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত একটি সড়ক সংস্কার করেছেন। 

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার চরফলকন ইউপির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বীর মুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন সড়কটি সংস্কার করতে দেখা গেছে। তিনদিন ধরে তারা স্বেচ্ছায় কাজটি করছেন। এতে দুর্ভোগ লাঘব হচ্ছে হাজারো মানুষের।

এ কাজে এগিয়ে এসেছেন রিপন হোসেন, ফিরোজ, মো. সবুজ, ইব্রাহিম স্বপন, আকবর হোসেন, রিয়াজ হোসেন, নূর করিম, আলাউদ্দিন, বাবলু, আজগর, মঞ্জুর, রাশেদ, রাকিব, হারুন, রুবেলসহ ৩০ জন। তারা ওই এলাকার বাসিন্দা। চলাচলের অনুপযোগী সড়কটি মাটি ভর্তি বস্তা ফেলে এখন চলাচলের উপযোগী করা হয়েছে। 

জানা গেছে, সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন উপজেলার জাজিরা এলাকা ও সাহেবেরহাট ইউপির মানুষ চলাচল করে। গত বছরের আগস্টে মেঘনার কয়েক দফা অস্বাভাবিক জোয়ার ও অতিবৃষ্টিতে ভেঙে সড়কটির ২০০ মিটার খালে পড়ে যায়। এতে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে দুর্ভোগে পড়ে হাজারো মানুষ। বিষয়টি স্থানীয়রা জনপ্রতিনিধিদের জানালেও কানে তোলেননি। এজন্য বাধ্য হয়েই স্থানীয় যুবকরা সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়। মাটি ভর্তি বস্তা দিয়ে তারা সড়কটি চলাচলের উপযোগী করেছেন। 

মাতাব্বরহাটের ব্যবসায়ীরা জানায়, সড়কটি দীর্ঘদিন থেকে মেরামত না হওয়ায় বাজারে মানুষের যাতায়াত কমে গেছে। যে কোরণে বেচাকেনা কমে তাদের লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে। এখন রাস্তা সংস্কারে মানুষ আবারো বাজারে আসতে সুবিধা হবে।

এ ব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা নাছির উদ্দিন বলেন, সড়কটি সংস্কারে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আবগত করা হয়েছে। কিন্তু সংস্কারের আশ্বাস দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি। অবশেষে স্বেচ্ছাশ্রমে স্থানীয় যুবকরা সড়কটি সংস্কার করেছেন। তবে সড়কটি অতিদ্রুত স্থায়ীভাবে মেরামত করতে হবে। তা না হলে আগামি বর্ষায় খালে বিলীন হয়ে যাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে