ধর্ষণের মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন, গর্ভের সন্তান বড় হবে আসামির পরিচয়ে

ঢাকা, রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২২ রজব ১৪৪২

ধর্ষণের মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন, গর্ভের সন্তান বড় হবে আসামির পরিচয়ে

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৩২ ২৬ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ০০:৩৩ ২৬ জানুয়ারি ২০২১

ধর্ষণের মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন (ফাইল ছবি)

ধর্ষণের মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন (ফাইল ছবি)

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুণীকে একাধিকবার ধর্ষণ করার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আবুল বাশারকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও দুই লাখ টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে ধর্ষণের ফলে জন্ম নেয়া শিশু আসামির পরিচয়ে বড় হওয়ার আদেশ দিয়েছে আদালত।

সোমবার দুপুরে বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আবুল বাশার বরগুনা সদর উপজেলার আয়লাপাতাকাটা ইউনিয়নের বধুঠাকুরানী গ্রামের আবদুল হালিম মিয়ার ছেলে। রায় ঘোষণার সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, মামলার বাদী ও ভিকটিম ওই আদালতে ২০০৯ সালের ৩ নভেম্বর আবুল বাশারের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০০৯ সালের ২৫ আগস্ট থেকে ২০০৯ সালের ১ নভেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন সময় আবুল বাশার তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেছেন। ধর্ষণের ফলে ভিকটিম গর্ভবতী হন। বাশার ভিকটিমকে বিয়ে করতে রাজি না হলে আদালতে মামলা করেন। মামলা চলাকালীন ভিকটিম একটি পুত্র সন্তানের মা হন।

আদালত রায়ে উল্লেখ করে, ধর্ষণের ফলে ১০ বছর আগে ভিকটিমের একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। সিয়াম নামের ছেলেটি এখন পঞ্চম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। সন্তানটি বাশারের পরিচয়ে বড় হবে। অর্থদণ্ডের দুই লাখ টাকা রাষ্ট্র আদায় করে ভিকটিমকে প্রদান করবে। এছাড়া শিশুটির লেখাপড়া ও ভরণ-পোষণের দায়িত্ব সরকার বহন করবে। রায় ঘোষণার সময় বাদী তার শিশুসন্তান নিয়ে আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষে এপিপি আশ্রাফুল আলম বলেন, বাদীপক্ষ রায়ে সন্তুষ্ট।

বাদী বলেন, বাশার আমাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে অসংখ্যবার ধর্ষণ করেছেন। অথচ বাশার আমাকে বিয়ে করেননি। আসামির সন্তান এখন পঞ্চম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। আমার ছেলেকে স্কুলে ভর্তির সময় তার বাবার নাম ঠিকই আবুল বাশার দেয়া হয়েছে। আমি এখন পর্যন্ত বিয়ে করিনি।

আসামি আবুল বাশার আদালতের বারান্দায় বলেন, এ রায়ের বিরুদ্ধে আমি হাইকোর্টে আপিল করব। আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন আইনজীবী মো. নিজাম উদ্দিন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম