৫০ বছর পর সুন্দরী খাল সংস্কার

ঢাকা, রোববার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১,   ফাল্গুন ১৫ ১৪২৭,   ১৫ রজব ১৪৪২

৫০ বছর পর সুন্দরী খাল সংস্কার

চাঁদপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৫ ২১ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৫:৪৬ ২১ জানুয়ারি ২০২১

সুন্দরী খাল সংস্কার শুরু

সুন্দরী খাল সংস্কার শুরু

দীর্ঘ ৫০ বছর পর চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার পালাখাল ইউনিয়নের মেঘদাইর গ্রামের সুন্দরী খালের সংস্কার কাজ শুরু করেছে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন। খালের সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকদর মুখে। সঠিক সময়ে ফসল ফলানোর আশায় বুক বেঁধেছেন তারা।

দেড় কিলোমিটার খালটি দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় পলি-কাদা জমে ভরাট হয়েছিল। ফলে বর্ষার পানিতে ডুবে থাকত ওই এলাকার প্রায় ৪০০ একর কৃষি জমি। সঠিক সময়ে চাষাবাদ করতে পারতেন না কৃষকরা।

মেঘদাইর গ্রামের কৃষক সফিক মিয়াজী বলেন, সুন্দরী খালের সংস্কার কাজ করা আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল। খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় প্রতি বছর বর্ষার পানিতে আমাদের ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে থাকত। এতে আমাদের কষ্টের ফসলগুলো পানিতে ডুবে নষ্ট হয়ে যেত।

কৃসক রাসেল মিয়া বলেন, সুন্দরী খালের সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় জলাবদ্ধতা সমষ্যার সমাধন হবে, এতে সঠিক সময়ে জমিতে চাষাবাদ করতে পারব।

পালাখাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমাম হোসেন সোহাগ বলেন, কয়েকদিন আগে সুন্দরী খালের পুনঃখনন কাজ শুরু হয়েছে। এতে এই অঞ্চলের ফসলি জমিতে জলাবদ্ধতার সমাধান হবে। এছাড়া খালের পানি সেচের মাধ্যমে শুস্ক মৌসুমেও কৃষকরা রবি শস্যের আবাদ করতে পারবেন। ফলে কৃষকদের ভাগ্যের উন্নয়ণ হবে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন কচুয়া উপজেলার উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রহিম বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে ৫০ বছর পর প্রায় ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে সুন্দরী খালের সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। ১৫-২০ দিনের মধ্যে খাল পুনঃখননের কাজ শেষ হবে। এখন কৃষকরা সারা বছরই সফল ফলানোর সুযোগ পাবেন।

তিনি আরো বলেন, খাল খননের কথা কৃষকদের আগেই জানানো হয়েছিল। খালের আশপাশের জমিতে খুব একটা ফসল নেই। তবু যেসব কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তাদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর