চোখ-মুখ বেঁধে ব্লেড দিয়ে ভাতিজির সারা শরীর কাটল পাষণ্ড চাচা

ঢাকা, রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২২ রজব ১৪৪২

চোখ-মুখ বেঁধে ব্লেড দিয়ে ভাতিজির সারা শরীর কাটল পাষণ্ড চাচা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৬ ১৮ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৭:৪৩ ১৮ জানুয়ারি ২০২১

শরীরে ব্লেড দিয়ে কেটে রক্তাক্ত করেছে চাচা হুমায়ুন মিয়া

শরীরে ব্লেড দিয়ে কেটে রক্তাক্ত করেছে চাচা হুমায়ুন মিয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চোখ-মুখ বেঁধে তিন সন্তানের মায়ের সারা শরীরে ব্লেড দিয়ে কেটে রক্তাক্ত করেছে আপন চাচা হুমায়ুন মিয়া। রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের শিলাউর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহত গৃহবধূকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের শিলাউর এলাকার আলগাবাড়ির বাসিন্দা। তার দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। গৃহবধূর স্বামী রাজমিস্ত্রির কাজ করেন।

চিকিৎসাধীন গৃহবধূর মা জানান, বিকেলে তার মেয়ের খুব মাথাব্যথা উঠে। সন্ধ্যার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ডাক্তার দেখাতে যাচ্ছিল। এ সময় কয়েকজন যুবক নিয়ে মেয়েকে চোখ-মুখে কাপড় দিয়ে চেপে ধরেন তার আপন চাচা হুমায়ুন মিয়া। একপর্যায়ে দুই হাত-পা ও শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে ব্লেড দিয়ে কেটে নির্যাতন করেন।

আহত গৃহবধূ জানান, তার ছোট ছেলের সঙ্গে চাচা হুমায়ুন মিয়ার ছেলের ঝগড়া হয়েছিল। এ নিয়ে প্রায়ই তাকে হত্যার হুমকি দিতেন চাচা। হাসপাতালে যাওয়ার পথে চাচা হুমায়ুন মিয়া ও মুখোশধারী কয়েকজন যুবক তার চোখ-মুখ, হাত-পা বেঁধে ফেলে। চিৎকার করলে খুন করার হুমকি দেয়া হয়। পরে ব্লেড দিয়ে সারা শরীরে আঘাত করতে থাকে তার চাচা। চিৎকার শুরু করলে মা ও স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান।

সদর মডেল থানার ওসি আব্দুর রহিম বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। তবে এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ দেননি। পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর