রাগে-অভিমানে ৩ সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২১ ১৪২৭,   ২১ রজব ১৪৪২

রাগে-অভিমানে ৩ সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি   ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৪৮ ১৭ জানুয়ারি ২০২১  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলায় জনিয়ারা খাতুন নামের  ৩ সন্তানের জননী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

রোববার দুপুরে উপজেলার মথুরাপুর ইউপির তারাগুনিয়া গ্রামের হিসনাপাড়ায় তার স্বামীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দৌলতপুর থানার ওসি জহুরুল ইসলাম।

নিহত জনিয়ারা খাতুন উপজেলার মথুরাপুর ইউপির হোসেনাবাদ কৈপাল গ্রামের আতিয়ার আলীর মেয়ে। তিনি তিন মেয়ে সন্তানের মা এবং একই ইউপির তারাগুনিয়া গ্রামের হিসনাপাড়ার ইটভাটা শ্রমিক আলাল উদ্দিনের স্ত্রী। আলাল উদ্দিন জনিয়ারা খাতুনের দ্বিতীয় স্বামী।

মথুরাপুর ইউপির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হাসেম আলী বলেন, জনিয়ারা খাতুনের প্রথম সংসারে ৩ টি মেয়ে সন্তান রয়েছে। তবে তিনি স্বামীকে তালাক দিয়ে প্রায় এক বছর ধরে বাবার বাড়িতে থাকতেন। এমতাবস্থায় গত ৫ মাস আগে পাশের গ্রামের তারাগুনিয়া হিসনাপাড়ায় দ্বিতীয় বিয়ে হয়। কিন্তু স্বামীকে পছন্দ করতো না জনিয়ারা খাতুন। এজন্য বিয়ের মাসখানেক পর থেকে স্বামীর বাড়িতে যেতেন না। কিন্তু তার মা-বাবা তাকে জোরপূর্বক স্বামী বাড়িতে পাঠায় গত শনিবার। স্বামী বাড়িতে পরিবারের লোকজনের অজান্তে রোববার দুপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে ঘটনাস্থল থেকে দৌলতপুর থানা পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

জানা গেছে, রোববার দুপুরে স্বামীর বাড়িতে পরিবারের লোকজনের অজান্তে  গলায় ফাঁস দেয়। পরে পরিবারের লোকজন দেখতে পায় জনিয়ারা গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুঁলে আছে। পরে তাদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে দেখে জনিয়ারা ঝুঁলন্ত মরদেহ।

নিহতের বাবা আতিয়ার আলী বলেন, আমার মেয়ে জনিয়ারা খুব রাগী ও অভিমানী ছিল। প্রথম স্বামীর ঘরে ৩টি মেয়ে সন্তান রয়েছে। সেই স্বামীকে এক বছর আগে তালাক দেয় আমার মেয়ে। তারপর থেকে আমার বাড়িতেই থাকতো।  ৫ মাস আগে তাকে দ্বিতীয় বিয়ে দিয়েছি। ওই স্বামীকে আমার মেয়ে পছন্দ করতো না,  তাদের বাড়িতে যেতে চাইতো না। শনিবারে বুঝিয়ে-শুনিয়ে পাঠালাম আর রোববার রাগে-অভিমানে আত্মহত্যা করে মারা গেল।
 
দৌলতপুর থানার ওসি জহুরুল ইসলাম বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে রাগে-অভিমানে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে