সময়ের সঙ্গে আমাদেরকেও এগিয়ে যেতে হবে: ববি

ঢাকা, শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ২ ১৪২৭,   ০১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সময়ের সঙ্গে আমাদেরকেও এগিয়ে যেতে হবে: ববি

রুম্মান রয় ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:১৭ ১৩ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১২:২৯ ১৪ জানুয়ারি ২০২১

ইয়ামিন হক ববি

ইয়ামিন হক ববি

বাংলাদেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে এই সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় এবং আলোচিত একজন অভিনেত্রী তিনি। ২০১০ সালে ‘খোঁজ- দ্যা সার্চ’ সিনেমার মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্র জগতে পথচলা শুরু হয় তার। এরপরে অভিনয় করেছেন ‘দেহরক্ষী’ ‘ফুল এন্ড ফাইনাল’ ‘ইঞ্চি ইঞ্চি প্রেম’ ‘রাজত্ব’ ‘অ্যাকশন জেসমিন’ ‘হিরো-দ্যা সুপারস্টার ‘ ‘বিজলী’ ‘বেপরোয়া’ এবং ‘নোলক’ সিনেমা। নিজের দক্ষতা এবং মেধা দিয়ে জিতে নিয়েছেন ভক্তদের মন। বলছিলাম ইয়ামিন হক ববির কথা। 

গেলো বছর এই নায়িকার মুকুটে যুক্ত হয়েছে নতুন পালক। ‘ইউরো-সিজেএফবি অ্যাওয়ার্ডের ১৯’ তম আসরে ২০১৯ সালের সেরা চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে পুরস্কার জিতেছিলেন তিনি। ‘নোলক’ সিনেমায় অসাধারণ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে সেরা নায়িকার এই পুরস্কার জিতেন। 

এছাড়া করোনার মধ্যেও নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী গরীব ও অসহায় মানুষদের সাহায্য করেছেন। সম্প্রতি একটা প্রোগ্রামে ব্রাইডাল সাজে ধরা দিয়েছেন ববি। এদিকে কলকাতায় নতুন একটি সিনেমায় কাজ করার কথা রয়েছে ববির। তার সমসাময়িক ব্যাস্ততা নিয়ে এবার মুখোমুখি হয়েছেন ডেইলি বাংলাদেশ-এর। আর তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুম্মনা রয়। 

ডেইলি বাংলাদেশ- সম্প্রতি একটা প্রোগ্রামে ব্রাইডাল লুকে দেখা গিয়েছে। রিয়েল লাইফে এই লুকে কবে দেখা যাবে?
ইয়ামিন হক ববি:
(হাসি) সত্যি বলতে সেটা আমি এখনো জানিনা। আমার আম্মা এখনো দেশের বাইরে আছেন। বিয়েটা আগেও আমার কাছে অতটা গুরত্বপূর্ণ ছিলো না। মনে হতো বিয়ে একটা সামাজিক রীতি। করোনায় আমি দেশে একাই থেকেছি। একা থেকে ফিল করেছি বিয়েটা মানুষের জীবনে গুরুত্বপূর্ন। বিয়ে মানে একজন সঙ্গী একজন বন্ধু একজন সহযোগী পাওয়া। আমি সব সময় আমার বাবার মতো আদর্শ, নীতি ভদ্র এমন কাউকে পেলে বিয়ে করবো। জানি আমার আব্বার মতো পুরো মিল পাবো না, তবুও কখনো কাউকে মনে হয় বিশ্বাসী, নম্র, ভদ্র তাহলে তাকেই বিয়ে করে নিবো। 

তবে কবে আমার বিয়ে হবে সেটা বলতে পারছিনা। প্রোগ্রামের জন্য যতবারই বধূ সেজেছি ততবারই ভীষণ ভালো লেগেছে। অন্যরকম অনুভূতি কাজ করে তখন। এখন রিয়েল লাইফে সাজলে বুঝা যাবে কেমন লাগে।

বর্তমানে আপনার হাতে কি কি কাজ রয়েছে?
ইয়ামিন হক ববি:
কলকাতায় নতুন একটি সিনেমায় কাজ করার কথা রয়েছে। করোনার জন্য কবে যেতে পারবো ঠিক বলতে পারছিনা। এর আগে তাদের প্রোডাকশন থেকে ‘রক্তমুখী নীলা’ সিনেমায় কাজ করেছিলাম। খুব শীঘ্রই ‘বি হ্যাপী’ থেকে নতুন সিনেমায় কাজ শুরু করবো। রাশিদ পলাশের একটি সিনেমাও কাজ করবো। তাছাড়াও সাত নির্মাতার প্রোজেক্টে ‘রণযোদ্ধ’ ছবিতে কাজ করবো। 

আমি স্বপন চৌধুরীর ‘বৃদ্ধাশ্রম’ ছবির ডাবিং শেষ করেছি। ছবিটি এখন মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। করোনার জন্য আরেকটি সিনেমার কাজ শুরু করতে পারছিনা। সৈকত নাসিরের পরিচালনায় ইমনের সঙ্গে ‘আকবর-ওয়ান্স আপন এ টাইম ইন ঢাকা’-এর।

বর্তমানে অনেকেই ওটিটি প্লাটফর্মে কাজ করছেন। ওটিটি প্লাটফর্মে কাজ করতে আপনার আগ্রহ কেমন?
ইয়ামিন হক ববি:
এখন বেশিরভাগ কাজের অফারই আসছে ওটিটি’র জন্য। আমার সব সময় একটা চিন্তা কিভাবে স্টার্ট করবো। আমি আসলে এমন একটি ক্যারেক্টারে অভিনয় করতে চাই যা আগে কখনো করিনি। আমি খুব বেশি গ্ল্যামার,রাফ এন টাফ, কমার্শিয়াল টাইপে কাজ করতে পছন্দ করি না। 

দর্শকরা আমাকে সে ধরনের চরিত্রগুলোতে পছন্দ করেছেন। আমার ব্যক্তিগত পছন্দের ক্যারেক্টারগুলো যেমন বাস্তবমুখী জীবনঘনিষ্ট গল্পের। আমার বাবারও এই ধরনের গল্পের চরিত্রগুলো পছন্দের ছিলো। ওটিটি প্লাটফর্মে কাজ করাটা আমি খুবই পজিটিভলি দেখছি। পৃথিবী এগিয়ে যাবে আর আমরা পিছিয়ে থাকবো এটা চাই না।

জীবন মানেই তো পরিবর্তন হওয়া। বিনোদনের দুনিয়াতে আমরা আগের ধারা নিয়ে থাকলে আসলে হেরে যাবো। তাই সময়ের সঙ্গে আমাদেরকেও এগিয়ে যেতে হবে। করোনার জন্য মানুষ হলমুখী হতে পারছে না। শুধু করোনার ব্যাপারটাই না, হলের জন্য কিছু ছবি হবে আবার কিছু ছবি ওটিটি জন্যও কনটেন্ট থাকবে। এগুলো আসলে পজিটিভভাবেই দেখতে হবে।

প্রদর্শক সমিতিরা দেশের প্রেক্ষাগৃহে হিন্দি সিনেমা চালাতে চাচ্ছে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কি?
ইয়ামিন হক ববি:
আমি একজন দর্শক হিসেবে বলতে পারি হলে যদি আটকাই কোনো লাভ নেই। কারণে মোবাইলে তো দেখতে পারছি। মানুষের হাতের মুঠোয় এখন সবকিছু। আমাদেরকে এখন সিনেমার বাজেট বাড়াতে হবে। আমাদের এখন রিচ করতে হবে। মানুষ এখন সব কাজ দেখে কম্পেয়ার করে।

তারকাদের নিয়ে নানান গুঞ্জন হয়। এটাকে আপনি কিভাবে দেখেন?
ইয়ামিন হক ববি:
প্রথম প্রথম আমি খুব রিয়েক্ট করতাম। তখন খুবই খারাপ লাগতো। আম্মা আমার ফিল্মে আসাটা পছন্দ করেননি। সেও এগুলো দেখলে আপসেট হতো। এগুলো কেন আসছে। আস্তে আস্তে আমি বুঝতে পারি, আমিতো পাবলিক ফিগার আমাকে নিয়ে তো চর্চা হবেই। তারা যে আমাকে নিয়ে কথা বলে এটাও তো ভাগ্যের ব্যাপার।

কারণ টাকার চেয়ে সময়ের মূল্য অনেক। আর মানুষ তাদের মূল্যাবান সময় ব্যয় করে আমার কথা বলছে হোক সেটা ভালো কিংবা মন্দ কথা। কথা তো আমাকে নিয়েই হচ্ছে। আর তারা তো ফেরেশতা নয় যে সব সময় ভালো কথা বলবে। আমি গুঞ্জন নিয়ে মাথা ঘামাইনা। কারণ মিথ্যাটা মিথ্যায় থেকে যায়। তাই ওটাকে আমি ওভাবে নেই না।

নতুন বছর নিয়ে আপনার প্রত্যাশা কি?
ইয়ামিন হক ববি:
প্রত্যাশা সবার মতো আমারও আছে। গেলো বছরটা সবার মতো আমার কাছেও একটা বিঁষের মতো ছিলো। আমার পরিবারের সবাইকে ছেড়ে একা একা কেটেছে। নতুন বছরটা যেনো গেলো বছরের সঙ্গে কোনোভাবেই মিল না থাকে। আমার হাতে অনেকগুলো নতুন কাজ আছে। সেগুলো নতুন বছর ভালোভাবে করতে চাচ্ছি। করোনায় আমাদের অনেক আপন মানুষ কেড়ে নিয়েছে। করোনা আমাদেরকে শিক্ষা দিয়েছে। আমরা এই নতুন বছরে ভালো শিক্ষাটাতে কাজে লাগিয়ে যেনো সবাই ভালো থাকতে পারি। সবার জন্য দোয়া সবাই অনেক ভালো থাকুক। আপনারাও আমার জন্য দোয়া করবেন আমিও যেনো ভালো থাকি।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস