প্রসূতি মাকে বাঁচাতে নিজেই সিজার করলেন সিভিল সার্জন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১৪ ১৪২৭,   ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রসূতি মাকে বাঁচাতে নিজেই সিজার করলেন সিভিল সার্জন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০২:১৮ ১৩ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ০৭:৫৭ ১৩ জানুয়ারি ২০২১

প্রসূতি মায়ের প্রাণ বাঁচাতে নিজেই সিজার করলেন সিভিল সার্জন

প্রসূতি মায়ের প্রাণ বাঁচাতে নিজেই সিজার করলেন সিভিল সার্জন

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া ১০০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একদল চিকিৎসক নিয়ে পরিদর্শনে এসেছিলেন সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ। ঠিক সে সময় এক প্রসূতি মায়ের সিজারের প্রয়োজন হলে তাকে প্রাণে বাঁচালেন। সঙ্গে থাকা চিকিৎসকদের নিয়ে সিজারের দায়িত্বটুকু নিজের কাধে তুলে নিলেন।  

এ সময় তিনি উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জসিম উদ্দীনকে এনেস্থেসিওলজিস্ট এবং মেডিকেল অফিসার ডা. আবু নেওয়াজ, ডা. এস এম সাকিবুর রহমান, ডা. ইয়ার আলী মুন্সিকে সহকারী সার্জন হিসেবে সঙ্গে নিয়ে সিজার অপরেশন সঠিকভাবে শেষ করেন। 

সংশ্লিষ্টরা জানান, সিভিল সার্জন হাসাপাতাল পরিদর্শনকালে উপজেলার গিমাডাঙ্গা গ্রামের রত্না খানম নামে এক নারীর জরুরি ভিত্তিতে অপারেশনের প্রয়োজন হয়। কিন্তু হাসপাতালে কোনো গাইনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না থাকায় সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ নিজেই অপারেশন করেন। 

এ বিষয়ে মেডিকেল অফিসার ডা. এস এম সাকিবুর রহমান জানান, হাসপাতাল পরিদর্শনকালে হঠাৎ প্রসব বেদনা নিয়ে হাসপাতালে আসেন রত্না বেগম। তবে তার স্বাভাবিক প্রসবে জটিলতার সম্ভাবনা থাকায় জরুরিভাবে অপারেশন দরকার হয়ে পড়ে। কিন্তু ওই হাসাপাতালে কোনো বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না থাকায় সিভিল সার্জন নিজেই আমাদেরকে নিয়ে অপারেশন করেন।

তিনি আরো জানান, ওই হাসপাতালে দীর্ঘ আড়াই বছর ধরে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না থাকায় কোনো অপারেশন হয়নি।

সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ বলেন, নানান সমস্যার কারণে দীর্ঘ আড়াই বছর অপারেশন বন্ধ থাকার বিষয়টি দুঃখজনক। অতিসত্তর যাতে অপারেশন চালু করা যায় তার জন্য স্বাস্থ্য অধিদফতর ও মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করে ডাক্তারের পদায়নসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের চেষ্টা করব।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম