ঘরবাড়ি বেচে শ্বশুরবাড়িতে, জামাইকে বটি দিয়ে কোপালেন শ্বশুর

ঢাকা, বুধবার   ২০ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৬ ১৪২৭,   ০৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ঘরবাড়ি বেচে শ্বশুরবাড়িতে, জামাইকে বটি দিয়ে কোপালেন শ্বশুর

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫২ ৫ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ২১:০৭ ৫ ডিসেম্বর ২০২০

হাসপাতালে ভর্তি জামাই

হাসপাতালে ভর্তি জামাই

স্ত্রীর কথামতো নিজের ঘরবাড়ি বেচে শ্বশুরবাড়িতে আশ্রয় নেন সামরান মিয়া। এরপরই শুরু হয় স্বামীর প্রতি স্ত্রীর কর্তৃত্ব। ছোটখাটো বিষয় নিয়ে স্বামীকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করতেন। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হতো। এরই জেরে শনিবার সামরান মিয়াকে বটি দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছেন শ্বশুর।

এ দিন বিকেলে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের মন্দিয়াতা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত সামরান মিয়া একই গ্রামের আবদুর রউফের ছেলে।

সামরান মিয়ার স্বজনরা জানান, কিছুদিন আগে স্ত্রী মাজেদা বেগম ও শ্বশুর ফিরোজ মিয়ার প্ররোচনায় গ্রামের নিজ বসতভিটা বিক্রি করেন সামরান মিয়া। পরে গৃহপালিত গরু নিয়ে শ্বশুরবাড়ি কলাগাঁয়ে আশ্রয় নেন। এরপর সামরান মিয়ার বসতভিটা বিক্রির টাকা আত্মসাৎ করতে শ্বশুর ফিরোজ মিয়া, শ্যালক সাদ্দাম হোসেন ও স্ত্রী মাজেদা বেগম মারধর করেন। এরই প্রেক্ষিতে শনিবার সকালে গরুগুলো ঘাস খাওয়ানোর জন্য ছেড়ে দিতে স্ত্রীকে বলেন সামরান মিয়া। এতে অপারগতা জানান স্ত্রী মাজেদা। একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রীর গায়ে হাত তোলেন তিনি।

পরে মাজেদা তার ভাই সাদ্দাম ও বাবা ফিরোজ মিয়ার কাছে স্বামীর নামে বিচার দেন। এ সময় তারা সামরানকে সমশের হাওর পাড়ে নিয়ে মারধর করেন। একপর্যায়ে বটি দিয়ে জামাইকে কুপিয়ে জখম করেন শ্বশুর ফিরোজ মিয়া। এতে সামরানের বাম হাতে আঘাত লাগে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়।

আহতের বড় ভাই কুতুব উদ্দিন বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সামরানকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আবদুল লতিফ তরফদার বলেন, বিষয়টি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর