চকরিয়ায় সৌদিয়া বাসে ডাকাতি, ৬ ডাকাত গ্রেফতার

ঢাকা, বুধবার   ২০ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৬ ১৪২৭,   ০৫ জমাদিউস সানি ১৪৪২

চকরিয়ায় সৌদিয়া বাসে ডাকাতি, ৬ ডাকাত গ্রেফতার

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৩২ ১ ডিসেম্বর ২০২০  

গ্রেফতারকৃত ছয় ডাকাত

গ্রেফতারকৃত ছয় ডাকাত

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ায় যাত্রীবাহী সৌদিয়া পরিবহনের একটি বাসে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। 

এ সময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ডাকাতিতে ব্যবহৃত একটি ওয়ান শুটার গান, এক রাউন্ড রাইফেলের বুলেট ও একটি রাম দা। এছাড়া উদ্ধার করা হয় ডাকাতির সময় লুট করা ২০টি মোবাইল, এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুল, একটি হাতঘড়ি, ২৮৫০ টাকা, আমিরাতের ২৫৫ এবং ওমানের ৩০০ মুদ্রা।

দুর্ধর্ষ এই ডাকাতির ঘটনার পর পুলিশের পাশাপাশি ছায়া তদন্ত শুরু করে র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের নিয়ন্ত্রণাধীন চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার ক্যাম্পের সদস্যরা। গ্রেফতার করা হয়েছে ডাকাতিতে জড়িত সাতজনের মধ্যে ছয়জনকে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ডাকাতিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্র ও যাত্রীদের কাছ থেকে লুটকৃত মালামাল।

প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে র‌্যাব জানায়, গত ২৭ নভেম্বর শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে যাত্রীবাহী নাইট কোচে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত ছিল সাতজন। এর মধ্যে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের একাধিক দল ছয়জনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ডাকাতিতে নেতৃত্ব দেয়া কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নের নাইক্ষ্যংদিয়া গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে মো. ইয়াহিয়া ওরফে জয়নালকে, নাইক্ষ্যংদিয়া গ্রামের ফরিদুল আলমের ছেলে ছলিম উল্লাহ, শিয়াপাড়ার মো. শাহজাহানের ছেলে ছাবের আহমদ, দক্ষিণপাড়ার হাছন আলীর ছেলে আবুল কালাম, চকরিয়ার খুটাখালী ইউনিয়নের খুটাখালী গ্রামের শাহ আলমের ছেলে শাহ আমান ওরফে বাটু ও চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানার দক্ষিণ পতেঙ্গা নাজিরপাড়ার মো. বদরুদ্দোজার ছেলে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

র‌্যাব কক্সবাজার ক্যাম্পের এক কর্মকর্তা জানান, ডাকাতির ঘটনায় সরাসরি জড়িত সাতজনের মধ্যে ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বাকি একজনও শনাক্ত হয়েছে। তাকেও সহসা গ্রেফতার করা হবে। 

তিনি জানান, গ্রেফতারকৃত ছয় ডাকাতকে চকরিয়া থানায় সোপর্দ করা হয়েছে সোমবার। এ সময় হস্তান্তর করা হয় ডাকাতিতে ব্যবহৃত ও উদ্ধারকৃত অস্ত্র, গুলি এবং ডাকাতির সময় লুটকৃত মালামাল।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ