প্রেমে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়ে কিশোরের কাণ্ড

ঢাকা, সোমবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৪ ১৪২৭,   ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রেমে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়ে কিশোরের কাণ্ড

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৮:২৫ ৩০ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:০০ ১ ডিসেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

কিশোরগঞ্জের নিকলীতে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে রাতুল ওরফে তোতা মিয়া নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার ভোরে উপজেলার ছাতিরচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

রোববার সকালে হাওরের একটি হিজল গাছের ডালের সঙ্গে রশিতে ঝুলানো অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তোতা মিয়া ছাতিরচর গ্রামের কাদির মিয়ার ছেলে। সে ছাতিরচর উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী।

ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. মানিক চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, রোববার সকালে গাছের ডালের সঙ্গে বাঁধা রশিতে ওই কিশোরের মরদেহ ঝুলতে দেখেন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর  হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ সময়  রাতুলের ফেসবুক আইডিতে একটি ‘সুইসাইড নোট’ পাওয়া যায়।

ফেসবুক স্ট্যাটাস- ‘আমি একটা মেয়েকে অনেক ভালোবাসি, সেও আমাকে অনেক ভালোবাসে। মেয়েটি আমার জন্য অনেক কষ্ট করছে, তার মা আমাদের সম্পর্কটা মেনে নিয়েছে কিন্তু তার বাবা সম্পর্কটা মানেন না। সব পরিবারের ইচ্ছা থাকে ভালো টাকা-পয়সা এবং বড় ঘর দেখে বিয়ে দিতে তাদের মেয়েকে, কিন্তু আমার শুধু ভালোবাসা আছে আর কিছুই নাই। শুধু ভালোবাসা দিয়ে তো আর পেট ভরে না। তাই আমি তিন বছরের সময় নিয়েছিলাম প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য।'

‘তার বাবা তাদেরকে সংসার থেকে বের করে দিয়েছে। তার বাবা আবার দুইটি বিয়ে করেছেন; তিনি বলেছেন- আমাকে ভুলে গেলে তাদেরকে মেনে নিবেন, শুধু আমার জন্য এ রকম হয়েছে। তার মা-ভাই-বোন সবাই তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তার মাও আমাদের সম্পর্কটা একবার মানে আরেকবার না করে। আমি তাদের কথামতো আমার বাড়ি থেকে বিয়ের জন্য পাঠিয়েছিলাম। সবাই হয়তো হাসতে পারেন যে, এত কম বয়সে বিয়ে। কিছুই করার ছিল না, আমার ভালোবাসার মানুষটিকে পেতে হবে। মেয়েটা আমার জন্য অনেক কষ্ট করেছে। আর ওর মা স্বামীর অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে আমারই জন্য। তাই আমি চাই আমার জন্য তারা আর কষ্ট না করুক। আর ভালো একটা ছেলে দেখে আপনাদের মেয়েকে বিয়ে দিবেন। একটা কথা মনে রাখবেন ভাত-কাপড়ের অভাবে মানুষ মরে না। মরে তো অমানুষের অত্যাচারে। মেয়েটাকে কেউ কিছু বলবেন না। কিছু কিছু সময় নিজেকেই সরে যেতে হয় ভালোবাসার মানুষটিকে ভালো রাখার জন্য।’

নিকলী থানার ওসি মো. সামসুল আলম সিদ্দিকী জানান, এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা রুজু করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ব্যতিক্রম কিছু পাওয়া গেলে পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ওই শিক্ষার্থীর ফেসবুক স্ট্যাটাসকে সুইসাইড নোট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে/জেডএম