ঝালকাঠিতে ১১৭ চেকে পৌর মেয়রের জাল স্বাক্ষর

ঢাকা, শুক্রবার   ২২ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৮ ১৪২৭,   ০৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ঝালকাঠিতে ১১৭ চেকে পৌর মেয়রের জাল স্বাক্ষর

ঝালকাঠি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৫৭ ২৯ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৯:৫৮ ৩০ নভেম্বর ২০২০

ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার

ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার

ঝালকাঠিতে পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদারের স্বাক্ষর জাল করে পৌরসভার কর্মচারীদের প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে ১১৭টি চেকের মাধ্যমে ১৮ লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করায় সাবেক মেয়রের দ্বিতীয় স্ত্রী, শ্যালকসহ ২২ জনকে শোকজ নোটিশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) এক জরুরি সভায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়ারও সিদ্ধান্ত হয়েছে। এর আগে, ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর পৌর মেয়রের নির্দেশে তদন্তে নামে ১১ সদস্যের কমিটি। ২৩ নভেম্বর মেয়রের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।

জানা গেছে, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রভিডেন্ট ফান্ড নামে রূপালী ব্যাংকে একটি অ্যাকাউন্ট রয়েছে। কর্মচারীদের বেতনের ১০ শতাংশসহ মোট ২০ শতাংশ টাকা এই অ্যাকাউন্টে জমা রাখা হয়- যা কর্মচারীরা চাকরি থেকে অবসর নেয়ার সময় পেয়ে থাকেন। অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলতে চেকে মেয়র ও সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর যৌথ স্বাক্ষর প্রয়োজন।

সম্প্রতি মেয়রের স্বাক্ষর জাল করে ট্রাক হেলপার মিলন হাওলাদার ও মর্তুজ আলী প্রভিডেন্ট ফান্ডের ৫১টি চেকে তিন লাখ ৩০ হাজার, স্যানিটারি ইন্সপেক্টর আবদুস সালাম সিকদার ১০টি চেকে এক লাখ ৬৪ হাজার, টিকাদানকারী আমিনুল ইসলাম, সীমা রানী দাস, সুলতানা পারভীন ও রাশিদা খানম ১৩টি চেকে দুই লাখ ৫১ হাজার, কসাইখানা পরিদর্শক গিয়াস উদ্দিন পাঁচটি চেকে এক লাখ ২৭ হাজার, রোলার চালক ফিরোজ খান, ইয়াসিন আরাফাত সাতটি চেকে ৮৭ হাজার, নিম্নমান সহকারী ফোরকান আমিন চারটি চেকে ৩৬ হাজার, অফিস সহায়ক মোরশেদা খানম ও জাহাঙ্গীর আলম সাতটি চেকে এক লাখ ৩৩ হাজার, স্বাস্থ্য সহকারী রিয়াজুল ইসলাম দুটি চেকে ৩৬ হাজার, ট্রাকচালক শাকিব খান দুটি চেকে ১৬ হাজার, সাবেক মেয়রের দ্বিতীয় স্ত্রী ফটোকপি অপারেটর শামসুন্নাহার মারিয়া একটি চেকে ২৮ হাজার, কার্য সহকারী নাজমুল হাসান একটি চেকে এক লাখ ৫০ হাজার, বিদ্যুৎ লাইনম্যান সোহেল রানা একটি চেকে ১৮ হাজার, পাম্পচালক ইকবাল হোসেন ও সাবেক মেয়রের শ্যালক সোহেল খান ১৪টি চেকে তিন লাখ তিন হাজার ও বিল ক্লার্ক সাহাব উদ্দিন তিনটি চেকে এক লাখ ৪১ হাজার টাকা তুলে নেয়।

পৌরসভার ট্রাক হেলপার মিলন ও মর্তুজ আলী বলেন, আমাদের চেকে মেয়রের স্বাক্ষর এনেছি। বাকিরা নিজেদের বাঁচাতে আমাদের নাম জড়িয়ে দিয়েছে।

স্যানিটারি ইন্সপেক্টর সালাম সিকদার বলেন, চেকে মেয়র স্বাক্ষর করেছেন কিন্তু পৌরসভার নথিতে তা উল্লেখ না থাকায় আমাদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে।

ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার বলেন, সম্প্রতি অফিস সহায়ক জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে গেলে জালিয়াতির ঘটনা জানাজানি হয়। এসব ঘটনায় অভিযুক্তদের কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/জেডএম