প্রতি কেজি মুলার দাম দুই টাকা, হতাশায় ভুগছেন কৃষকরা

ঢাকা, শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ২ ১৪২৭,   ০১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রতি কেজি মুলার দাম দুই টাকা, হতাশায় ভুগছেন কৃষকরা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৭:২৫ ২৯ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ২০:৩২ ৩০ নভেম্বর ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলায় পাঁচ কেজি মুলা ১০ টাকায় বিক্রি করছেন কৃষকরা। ক্রেতার অভাবে প্রতি কেজি মুলা দুই টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ফলে হতাশায় ভুগছেন কৃষকরা।

শনিবার কুড়িগ্রামের যাত্রাপুর হাট ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়। মুলার দাম না পাওয়ায় হতাশায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কৃষকরা।

যাত্রাপুরের ঘনেশ্যামপুর, গারুহাড়া, ধরলার পাড়, উত্তর ঘনেশ্যামপুর এলাকা থেকে মুলা বিক্রির জন্য যাত্রাপুর হাটে আসেন কৃষকরা। এবার সবজি উৎপাদন বেশি হওয়ায় যাত্রাপুর হাটে ক্রেতা কম। পাশাপাশি করোনার কারণে হাটে কমে গেছে ক্রেতাদের আগমন।

এখন আলু, বেগুন, পেঁয়াজের চাহিদা থাকলেও মুলাসহ অনান্য সবজির ক্রেতা নেই বললেই চলে। 

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এবার  সদর উপজেলায় ৫৪০ হেক্টর জমিতে শাক- সবজির চাষ হয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার সবজির চাষ বেশি হওয়ায় দাম কম।

যাত্রাপুর হাটে মুলা বিক্রি করতে আসা একজন কৃষক বলেন, চার হাজার টাকা ব্যয়ে ১৬ শতক জমিতে মুলার চাষ করছি। আজ প্রথম হাটে মুলা বিক্রি করতে এসেছি। কিন্তু ক্রেতা নেই। বাজারে মুলা বিক্রি করতে এসে বিপাকে পড়েছি। ক্রেতা না থাকায় দুই টাকা কেজিতে মুলা বিক্রি করেছি।

যাত্রাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার বলেন, উৎপাদন বেশি হওয়ায় ক্রেতার সঙ্কট। ফলে মুলা চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, শহরে তো বিভিন্ন সবজির দাম ভালোই আছে। তবে ওই এলাকার কৃষকরা ঠিকমতো বাজারজাত করতে না পারায় কম দামে বিক্রি করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে/জেডএম