প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ধরা ইমাম 

ঢাকা, সোমবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৪ ১৪২৭,   ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ধরা ইমাম 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২৩:২০ ২৮ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ২৩:২০ ২৮ নভেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

তরুণীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় মোহাম্মদ আলী নামে এক ইমামকে আটকের পর মুচলেখা রেখে ছেড়ে দিয়েছেন এলাকাবাসী।

শনিবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সলিমাবাদ ইউপির আশরাফবাদ গাউসুল আজম জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।

মোহাম্মদ আলী বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পুরান কদমতুলী গ্রামের মো. ফয়জুর রহমানের ছেলে।  

জানা যায়, এক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর মাইকে ঘোষণা দিতে এলাকাবাসী মসজিদে গিয়ে ইমামকে খোঁজ করতে থাকেন। পরে তাকে না পেয়ে মসজিদ ঘেঁষা ইমামের থাকার কক্ষের জানালার ফাঁক দিয়ে ইমামকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পান। এ ঘটনায় এলাকার লোকজনক জড়ো হয়ে উত্তেজিত হয়ে ওঠে। 

মেয়েটি একই উপজেলার আসাদনগর গ্রামের বাসিন্দা। তারা দু’জনই অবিবাহিত। খবর পেয়ে বাঞ্ছারামপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশ ইমামের ফেসবুক ইনবক্সে গিয়ে মেয়ের সঙ্গে অনেক আপত্তিকর কথাবার্তার তথ্য পায়। এ সময় কয়েকশ মানুষ মসজিদের সামনে ভিড় জমান। পরে মসজিদ কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে তাৎক্ষণিকভাবে ইমামকে বহিষ্কার করেন। 

মসজিদের ইমাম মোহাম্মদ আলী জানান, মেয়েটি তার পূর্ব পরিচিত। তাকে দরজা বন্ধ করে কক্ষে নেয়ার কথা স্বীকার করেন। তবে তার সঙ্গে মেলামেশা করেনি বলে তিনি দাবি করেছেন। 

স্থানীয় ইউপি মেম্বার মোহাম্মদ সেলিম বলেন, একজন ইমাম এত নিকৃষ্ট হতে পারে ভাবতে পারছি না। তার মতো ইমামের পেছনে নামাজ পড়াটা উচিৎ হয়নি। তবে মসজিদ কমিটি এখন থেকে আর অবিবাহিত ইমাম নেবেন না বলে জানিয়েছেন। 

বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি সালাহ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ইমামের সঙ্গে মেয়েটির সম্পর্ক রয়েছে বলে ওই ইমান পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন। তবে তার সঙ্গে কোনো ধরনের আপত্তিকর ঘটনা ঘটান নি বলেও দাবি করেন। পরে মেয়ের পক্ষ থেকে অভিযোগ না থাকায় ওই ইমামের বড় ভাই আওয়াল মিয়ার জিম্মায় মুচলেখা রেখে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে