পানির সঙ্গে এরারুড- ইকোজেড মিশিয়ে দুধ তৈরি, ব্যবসায়ীর কারাদণ্ড

ঢাকা, রোববার   ১৭ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ৩ ১৪২৭,   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

পানির সঙ্গে এরারুড- ইকোজেড মিশিয়ে দুধ তৈরি, ব্যবসায়ীর কারাদণ্ড

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:০৪ ২৫ নভেম্বর ২০২০  

নকল দুধ বিক্রির অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত আবদুর রাজ্জাক

নকল দুধ বিক্রির অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত আবদুর রাজ্জাক

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় ২৭০ কেজি নকল দুধসহ আবদুর রাজ্জাক নামে এক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে। পানি আর কেমিক্যাল দিয়ে দুধ তৈরি করে ঢাকায় সরবরাহ করে আসছিলেন তিনি।

সাটুরিয়ার ইউএনও আশরাফুল আলম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার ভোরে উপজেলার ফুকুরহাটি গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। আবদুর রাজ্জাক ফুকুরহাটি গ্রামের বিষুরুদ্দিনের ছেলে।

আশরাফুল আলম বলেন, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি পানির সঙ্গে এরারুড ও ইকোজেড মিশিয়ে দুধ তৈরি করছেন। তখন ৯টি গ্যালন নকল দুধ ও দুই কেজি এরারুড পাউডারসহ তাকে আটক করি।

আটক ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক বলেন, প্রতিদিন ঢাকার মহাজনদের চাহিদা মতো ৮-৯ মণ দুধ সরবরাহ করি। এক মণ পানির মধ্যে ৫ কেজি ইকোজেড ও ১০০ গ্রাম এরারুড দিলেই দুধ তৈরি হয়ে যায়।

তিনি বলেন, এ ব্যবসা শুধু আমি করি না, যারা দুধ ঢাকায় দেয় তারা সবাই করে। বাজার থেকে দুধ কিনতে হয় ৭০- ৮০ টাকা কেজি। আর ঢাকার মহাজনরা ৫০ টাকা করে দাম দেয়। ৮০ টাকার দুধ ৫০ টাকায় বিক্রি করতে হয়। এতে পোষায় না। তাই ৪০ কেজির দুধে ১৫ কেজি নকল দুধ দিয়ে ঢাকায় পাঠাই।

ইউএনও আশরাফুল আলম বলেন, বুধবার সকালেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে নিরাপদ খাদ্য আইনের ২৫ ধারায় আবদুর রাজ্জাককে এক বছরের কারাদণ্ড প্রদান এবং ভেজাল দুধগুলো নষ্ট করা হয়।

তিনি বলেন, আমি শুনেছি উপজেলায় আরো কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রয়েছে যারা নকল দুধ তৈরি করে বিক্রি করছে। তাদের বিরুদ্ধেও অভিযান পরিচালনা করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ