হিজড়াকেও ছাড়লো না ‘ভণ্ড’ প্রেমিক

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৪ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১০ ১৪২৭,   ০৭ রবিউস সানি ১৪৪২

হিজড়াকেও ছাড়লো না ‘ভণ্ড’ প্রেমিক

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪৯ ১৫ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৩:৫৪ ১৬ নভেম্বর ২০২০

ঈশা খাঁর সঙ্গে জুঁই

ঈশা খাঁর সঙ্গে জুঁই

ঈশা খাঁ, যার নেশাই ছিল প্রেমের অভিনয় করা। আর এ ভণ্ড প্রেমিকের ফাঁদে পড়ে অনেক মেয়েই হারিয়েছে সর্বস্ব। তার এ ফাঁদে পড়েছেন এক হিজড়াও। হিজড়ার সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে দেড় লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন ঈশা খাঁ। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে সমন জারি করেছে আদালত। রোববার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিহাব উদ্দিন এ সমন জারি করেন।

আরো পড়ুন>>> হত্যার পর ‘খেলার ছলে ফাঁস’ নাটক সাজালো ইকরার আপন বাবা-মা

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, প্রতারণার শিকার ওই হিজড়ার নাম জুঁই। তিনি ২০১৭ সালে ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় তার দলের সঙ্গে থাকতেন। ওই সময় প্রেমিক ঈশা খাঁ বসুন্ধরা কমিউনিটি সেন্টারে চাকরি করতেন। একই এলাকায় থাকার সুবাদে তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব তৈরি হয়। একপর্যায়ে প্রেমে রূপ নেয়। একদিন জরুরি প্রয়োজনের কথা বলে তিন মাসের জন্য দেড় লাখ টাকা ধার নেন ঈশা খাঁ।

আরো পড়ুন>>> লাশ থেকে কঙ্কাল আলাদা করাই ছিল বাপ্পির কাজ

চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর প্রেমিক ঈশা খাঁর কাছে টাকা চাইলে তিনি কোনো টাকা নেননি বলে জানান। পরে স্থানীয়ভাবে বিষয়টির মীমাংসা না করতে পেরে আজ রোববার পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আমলি আদালতে একটি মামলা করেন জুঁই। পরে আদালত ঈশা খাঁর বিরুদ্ধে সমন জারি করে।

আরো পড়ুন>>> বাংলার বধূর সিরিয়াল কিলার হয়ে ওঠার পেছনে করুণ ইতিহাস

কান্নাজড়িত কণ্ঠে জুঁই বলেন, টাকা নেয়ার আগে ঈশা খাঁ আমার সঙ্গে সুন্দর করে কথা বলতেন। নিজের জমানো টাকা ধার দেই তাকে। সেই টাকা চাওয়ায় এখন আমার সঙ্গে মোবাইলে কথাও বলতে চান না, দেখাও করেন না।

আরো পড়ুন>>> মানুষ মরলেই মুচকি হাসতো বাপ্পি, রাতের আঁধারে গায়েব করতো লাশ

বাদীপক্ষের আইনজীবী এসএম তৌফিক হোসেন মুন্না বলেন, তৃতীয় লিঙ্গের জুঁইয়ের সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে ঈশা খাঁ দেড় লাখ টাকা আত্মসাৎ করে প্রতারণা করেন। এ ঘটনায় ৪০৬ ও ৪২০ ধারায় একটি মামলা করেন জুঁই। আদালত মামলাটি সরাসরি আমলে নিয়ে আসামির বিরুদ্ধে সমন জারি করে।

আরো পড়ুন>>> ব্যাংক থেকে ‘উধাও’ মাহমুদার ২৫ বছরের স্বপ্ন

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর/এআর