চাঁদপুরে শিশু হত্যায় দুইজনের মৃত্যুদণ্ড

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১৪ ১৪২৭,   ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

চাঁদপুরে শিশু হত্যায় দুইজনের মৃত্যুদণ্ড

চাঁদপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৭ ৮ নভেম্বর ২০২০  

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামাল হোসেন ও সজীবকে কারাগারে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামাল হোসেন ও সজীবকে কারাগারে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ

চাঁদপুরে সাত বছরের শিশু মহিব হত্যা মামলার দুইজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে চাঁদপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক। এছাড়া প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডও দিয়েছে আদালত। রোববার বিকেলে চাঁদপুরের জেলা ও দায়রা জজ এস এম জিয়াউর রহমান এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামাল হোসেন মতলব দক্ষিণ উপজেলার ঘোনা গ্রামের গোগন প্রধানিয়া বাড়ির মুকবুল হোসেনের ছেলে এবং সজীব একই গ্রামের ওমেদ আলী বেপারী বাড়ীর মো. শহীদ উল্যাহর ছেলে। মামলার বাদী মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামালের ছোট ভাই ও নিহত শিশুর বাবা মো. মাসুদ রানা। ঘটনার সময় তিনি প্রবাসে ছিলেন।

রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে নিহত শিশুর বাবা মাসুদ রানা জানান, ২০১৮ সালের ৩ ডিসেম্বর বাড়ি থেকে তার ছেলে মহিব ঘোনা স্কুল মাঠে খেলতে যায়। সন্ধ্যায় সে বাড়ি না আসলে অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পরদিন ৪ ডিসেম্বর আমার স্ত্রী ও আমার বড় ভাই জামাল গিয়ে থানায় জিডি করেন। পরবর্তীতে মাসুদ রানাকে স্ত্রী ঘটনাটি জানালে তিনি দেশে এসে ৯ ডিসেম্বর থানায় মামলা করেন। পুলিশ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে প্রথমে সজিবকে আটক করে। সজিব আদালতে স্বীকারোক্তি দিলে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়, ঘটনার দিন খেলার মাঠ থেকে মহিবকে ধরে নিয়ে চাচা জামাল ও সহযোগি সজীবসহ তার চায়ের দোকানে নিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং তাজুল ইসলাম নামে ব্যাক্তির বাড়ীর সেপ্টি ট্যাংকিতে লুকিয়ে রাখে।

পরবর্তীতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তৎকালীন সময়ের মতলব দক্ষিণ থানার এসআই মো. ইব্রাহীম খলিল তদন্তশেষে ২০১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

আদালত দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর সময়ে ২৫ জনের সাক্ষীগ্রহণ করেন এবং মামলার সব নথিপত্র পর্যালোচনা করে আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট রনজিত কুমার রায় চৌধুরী বলেন, ধূর্ত জামাল হোসেন প্রথমে নিজে সাধু সাজার চেষ্টা করেছে কিন্তু পুলিশি তদন্তে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে। শেষ অবদি সাজা হওয়ায় আমরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ