গণধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী, নারীসহ গ্রেফতার ৫

ঢাকা, বুধবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৮ ১৪২৭,   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

গণধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী, নারীসহ গ্রেফতার ৫

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৯ ৩০ অক্টোবর ২০২০  

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা, নারায়ণগঞ্জ

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা, নারায়ণগঞ্জ

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে গণধর্ষণের শিকার এক কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়েছে। এ ঘটনায় নারীসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতাররা হলেন- ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জের রমজান আলীর ছেলে উজ্জ্বল রানা, সাতারুল হোসেনের ছেলে তাজেল ইসলাম, বাবুল হাওলাদারের ছেলে মো. জালাল, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আব্দুর রশিদ হাওলাদারের ছেলে আব্দুল আজিজ হাওলাদার ওরফে মিন্টু হাওলাদার, তার স্ত্রী বিলকিস হাওলাদার। তারা সিদ্ধিরগঞ্জ কদমতলীর গ্যাসলাইন এলাকার হুমায়ুন কবিরের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

এর আগে, বৃহস্পতিবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীর মা। রাতেই অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় ওই কিশোরী তাদের ঘরের পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। ওই সময় প্রতিবেশী জালাল ও বিলকিস তাকে কথা বলার জন্য নিজেদের ঘরে নিয়ে যায়। পরে উজ্জ্বল রানা ও তাজেল ইসলামকে ডেকে এনে কিশোরীর সঙ্গে একই ঘরে রেখে বাইরে চলে যায় তারা। এরপর তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে উজ্জ্বল ও তাজেল। ধর্ষণে ওই কিশোরী অসুস্থ হয়ে পড়লে ওষুধ এনে দেয় বিলকিস। সুস্থ হওয়ার পর মিন্টু হাওলাদার, বিলকিস ও জালাল ওই কিশোরীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। সে লজ্জায় ও ভয়ে গণধর্ষণের ঘটনা কাউকে জানায়নি।

এজাহারে আরো বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) ওই কিশোরী হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর হাসপাতালে নিলে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর চিকিৎসক জানান সে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এরপরই পরিবারকে গণধর্ষণের কথা জানায় ওই কিশোরী।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি কামরুল ফারুক জানান, ছয় মাস আগে প্রতিবেশী ভাড়াটিয়াদের গণধর্ষণের শিকার হয় ওই কিশোরী। লজ্জা আর ধর্ষকদের ভয়ে দীর্ঘদিন চুপ ছিল সে। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক জানানওই কিশোরী পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এরপরই গণধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। এ ঘটনায় কিশোরীর মা মামলা করলে ঘটনার সঙ্গে জড়িত পাঁচ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর