চট্টগ্রাম দক্ষিণে আস্থা হারাচ্ছে বিএনপি

ঢাকা, বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১২ ১৪২৭,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

চট্টগ্রাম দক্ষিণে আস্থা হারাচ্ছে বিএনপি

চট্টগ্রাম মহানগর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:২৯ ২৭ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৪:২১ ২৭ অক্টোবর ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলায় বিএনপির একদিকে যেমন কমিটি নেই অন্যদিকে নেই নেতৃত্ব। এ কারণে ভেঙে পড়েছে সাংগঠনিক কার্যক্রম। তাই দলের প্রতি আস্থা হারাচ্ছে কর্মীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চট্টগ্রাম দক্ষিণে রয়েছে পটিয়া, বাঁশখালী, চন্দনাইশ, লোহাগাড়া, বোয়ালখালী, সাতকানিয়া, আনোয়ারা ও কর্ণফুলী উপজেলা। এরসঙ্গে রয়েছে বাঁশখালী, চন্দনাইশ, পটিয়া ও সাতকানিয়া পৌরসভা।

অভিযোগ রয়েছে, গত বছরের ২ অক্টোবর চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ানকে এসব ইউনিটে দল গোছানোর দায়িত্ব দিয়েছিল হাইকমান্ড। তিন মাসের মধ্যে দল গোছানোর সময় বেধে দিয়ে ৬৫ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছিল তাকে। কিন্তু দায়িত্ব নিয়েই আবু সুফিয়ান ২০১৯ সালের ২১ অক্টোবর এক সভায় সাতটি উপজেলা, পাঁচটি পৌরসভাসহ সব পর্যায়ের কমিটি বাতিল করে দেন। এরপর থেকে এসব ইউনিটে এক বছর ধরে কোনো কমিটি নেই। যেখানেই নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে, সেখানেই দলাদলিতে আটকে যাচ্ছে কার্যক্রম।

চন্দনাইশ উপজেলা বিএনপির সিনিয়র নেতা নুরুল আনোয়ার বলেন, যে কমিটিকে দায়িত্ব দিয়ে উপজেলা, পৌরসভাসহ অন্যান্য কমিটি ভেঙে দিয়ে পুনর্গঠন করার কথা সেই কমিটির খোঁজ নেই। তিন মাসের মধ্যে কমিটিগুলো গঠন করে সম্মেলন আয়োজনের কথা ছিল। কিন্তু এক বছরে একটি কমিটিও পুনর্গঠন করা যায়নি। ফলে এখানকার কোনো ইউনিটে দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো নেতা নেই। দলের অবস্থাও শোচনীয়।

জানা যায়, ২০০৯ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরীকে সভাপতি ও অধ্যাপক শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। অভ্যন্তরীণ বিরোধের জেরে ২০১১ সালে ওই কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদে রদবদল আনা হয়। শেখ মহিউদ্দিনকে সরিয়ে গাজী শাহজাহান জুয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। পরে জাফরুল ইসলাম ও শাহজাহান জুয়েলের নেতৃত্বে ১৫১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, কমিটির মেয়াদ দুই বছর। কিন্তু দীর্ঘ আট বছর দায়িত্ব পালন করে যান তারা। এরপর দলের কার্যক্রমে আরো গতি আনতে গত বছরের ২ অক্টোবর আবু সুফিয়ানকে আহ্বায়ক ও বোয়ালখালী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমদকে সদস্য সচিব করে কেন্দ্র থেকে ৬৫ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। তবে তারাও সেভাবে দলে গতি আনতে পারেননি।

মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপিতে দ্বন্দ্ব ও প্রতিযোগিতা রয়েছে। এর সঙ্গে নেতাদের পছন্দ-অপছন্দের বিষয়টি জড়িয়ে যাওয়ায় নতুন কমিটি গঠনে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এরপরও আমরা দলের সব পক্ষকে নিয়ে, সবার সঙ্গে আলোচনা করে দল পুনর্গঠনের কাজ করে যাচ্ছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম/এআর/এইচএন