দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ ‘বিজয়’

ঢাকা, শনিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৭,   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ ‘বিজয়’

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:১৮ ২৫ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২০:১৯ ২৫ অক্টোবর ২০২০

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সফলভাবে দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘বিজয়’ - আইএসপিআর

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সফলভাবে দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘বিজয়’ - আইএসপিআর

ভূ-মধ্যসাগরের লেবাননে মাল্টিন্যাশনাল মেরিটাইম টাস্ক ফোর্সের আওতায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সফলভাবে দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘বিজয়’। 

রোববার জাহাজটি চট্টগ্রাম নেভাল জেটিতে এসে পৌঁছালে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাগতম জানান নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল। এসময় সফলভাবে মিশন সমাপ্ত করার জন্য জাহাজে উপস্থিত সব কর্মকর্তা ও নাবিকদের আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান নৌবাহিনী প্রধান।

নৌবাহিনী প্রধান বলেন, গত ৪ আগস্ট বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণের ঘটনায় জাহাজটি ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং নৌসদস্যদের আহত হওয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নেন। সেইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জাহাজের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা ও নৌসদস্যদের সুচিকিৎসার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেন।

সবার সুস্থতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি জাহাজের প্রয়োজনীয় মেরামত শেষে নিরাপদে জাহাজটি দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য নৌবাহিনী প্রধান জাহাজের প্রতিটি সদস্যের অসীম সাহস, উদ্যম এবং পেশাদারিত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন। 

সফলভাবে মিশন সমাপ্ত করার জন্য জাহাজে উপস্থিত সব কর্মকর্তা ও নাবিকদের আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল - আইএসপিআর

নৌবাহিনী প্রধান আরো বলেন, সফলভাবে দেশে প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে প্রমাণিত হলো বাংলাদেশ নৌবাহিনী তার উপর ন্যস্ত যেকোনো দায়িত্ব পালনের চ্যালেঞ্জ পেশাদারিত্বের সঙ্গে মোকাবিলা করতে সক্ষম। এছাড়া বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতিতে জাহাজের নৌসদস্যরা করোনা থেকে মুক্ত থাকায় সবার প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিতে জাহাজটি লেবাননে  প্রেরণ করা হয়। জাহাজটি লেবাননের জলসীমায় মেরিটাইম ইন্টারডিকশন অপারেশন, সন্দেহজনক জাহাজ ও এয়ারক্রাফটের ওপর নজরদারি, দুর্ঘটনা কবলিত জাহাজে উদ্ধার তৎপরতা এবং লেবাননের নৌবাহিনীর সদস্যদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছিল। লেবাননে অবস্থানকালে বিগত তিন বছরে জাহাজটিতে পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ৩৩০ জন সদস্য অত্যন্ত দক্ষতা, পেশাদারিত্ব, আন্তরিকতা ও শৃঙ্খলার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালন করেন।

শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত থাকাকালে ৪ আগস্ট লেবাননের রাজধানী বৈরুত বন্দরের একটি ওয়ারহাউজে ভয়াবহ বিস্ফোরণের সময় জাহাজটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এরপর তুরস্কে মেরামত শেষে ২৪ সেপ্টেম্বর জাহাজটি বাংলাদেশের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস/এইচএন/টিআরএইচ/আরএইচ