স্বামী-সন্তানকে কষ্ট দিয়ে পরকীয়া প্রেমিকের হাতে গৃহবধূ লাশ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১২ ১৪২৭,   ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২

স্বামী-সন্তানকে কষ্ট দিয়ে পরকীয়া প্রেমিকের হাতে গৃহবধূ লাশ

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫৮ ২৪ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২২:২২ ২৪ অক্টোবর ২০২০

স্বামী-সন্তানকে কষ্ট দিয়ে পরকীয়া প্রেমিকের হাতে গৃহবধূ লাশ-প্রতীকী ছবি।

স্বামী-সন্তানকে কষ্ট দিয়ে পরকীয়া প্রেমিকের হাতে গৃহবধূ লাশ-প্রতীকী ছবি।

স্বামী ও দুই ছেলে-মেয়ে নিয়ে ভালোই চলছিল গৃহবধূ জোনাকির সংসার। হঠাৎ সংসারের প্রতি মনোযোগ হারিয়ে ফেলেন তিনি। জড়িয়ে পড়েন পরকীয়া প্রেমে। এক পর্যায়ে স্বামী ও দুই সন্তানকে কষ্ট দিয়ে পরকীয়া প্রেমিক অনিক পান্ডের সঙ্গে পালিয়ে যান। কিন্তু প্রেমিকের হাতেই লাশ হলেন জোনাকি। এরইমধ্যে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার বিকেল ৩টায় হবিগঞ্জ-বানিয়াচং আঞ্চলিক সড়কের পাশ থেকে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় অনিককে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা।  

নিহত জোনাকি বানিয়াচং উপজেলার কুতুবখানী গ্রামে অপু মিয়ার স্ত্রী। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের জননী। আটক প্রেমিক নাম অনিক পান্ডে একই উপজেলার কাষ্টগড় গ্রামের মৃনাল পান্ডের ছেলে। 

নিহতের মা হেনা বেগম জানান, প্রায় দেড়মাস আগে স্বামী-সন্তানকে রেখে নিহত জোনাকী প্রেমিক অনিক পান্ডের হাত ধরে পালিয়ে যায়। শনিবার দুপুর ২টায় হেনা বেগমকে অনিক ফোনে জানায় যে, তার মেয়ে সিলিং ফ্যানের আঘাতে মৃত্যুবরণ করেছে। সে অ্যাম্বুলেন্সে লাশ পাঠাচ্ছে। 

এদিকে কিছুক্ষণের মধ্যে হবিগঞ্জ-বানিয়াচং রোডে চলাচলকারী যাত্রীদের দৃষ্টিগোচর হয় যে, একটি ছোট মেয়ের পাশে একজন নারীর লাশ পড়ে আছে। ওই সময় অ্যাম্বুলেন্সের চালক লাশ রেখে চলে যায়। অভিযুক্ত অনিক পান্ডে পাশের খাল পেরিয়ে চলে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে।

নিহতের মা হেনা বেগম জানান, অনিক আমার মেয়ে ও তার সন্তানদের জীবন নষ্ট করেছে। আমি মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

বানিয়াচং থানার ওসি মো. এমরান হোসেন বলেন, লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্ত করার পাশাপাশি অভিযুক্ত অনিককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ