কিশোরগঞ্জে দিনদিন পিছিয়ে পড়ছে বিএনপি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৭,   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

কিশোরগঞ্জে দিনদিন পিছিয়ে পড়ছে বিএনপি

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৪ ২৩ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৯:৫৫ ২৩ অক্টোবর ২০২০

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কিশোরগঞ্জে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক কর্মকাণ্ডেও পিছিয়ে পড়েছে বিএনপি। বছরের পর বছর জেলা-উপজেলার নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন কেন্দ্রীয় নেতাদের। এতে দলছুট হয়ে পড়েছে তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। যতই দিন যাচ্ছে, পিছিয়ে পড়ছে কিশোরগঞ্জ বিএনপি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা-উপজেলার অধিকাংশ বিএনপি নেতা সহজে দলীয় কর্মকাণ্ডে অংশ নেয় না। এমনকি সামাজিক কর্মকাণ্ডেও দেখা মেলে না তাদের। শুধু তাই নয়, করোনা পরিস্থিতিতে জেলায় কোনো কাজই করেনি বিএনপি।

জেলা বিএনপির কর্মীরা জানায়, নেতারা জেলা-উপজেলায় থাকেন না। তারা রাজধানী কেন্দ্রিক জীবনযাপনে অভ্যস্ত। তাই কর্মীদের সঙ্গে নেতাদের সম্পর্কে ভাটা পড়েছে। সুযোগ সন্ধানীদের কারণে ত্যাগী কর্মীরা সুযোগ-সুবিধা না পাওয়ায় দলছুট হয়ে পড়েছে।

কিশোরগঞ্জের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ভৈরব ও কিশোরগঞ্জ সদর। জেলার বাণিজ্যিক কেন্দ্র এই দুই উপজেলা। সদর ও ভৈরব উপজেলা হয়েই সারাদেশের সঙ্গে সংযোগ কিশোরগঞ্জের। অথচ করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে বসে থাকা এ দুই উপজেলার ব্যবসায়ীদের পাশে দাঁড়ায়নি বিএনপির কোনো নেতা। দলটির পক্ষ থেকে কোনো সহায়তা পায়নি কর্মহীন-অসহায় মানুষ। এ অবস্থায় ভৈরব-কিশোরগঞ্জ সদরে নিজেদের অবস্থান হারিয়েছে বিএনপি।

ভৈরবের ব্যবসায়ীরা জানান, করোনায় প্রায় ছয় মাস তারা ঘরবন্দি হয়ে ছিলেন। আয়-রোজগার ছিল পুরোপুরি বন্ধ। ওই সময় অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে সুরক্ষা সামগ্রী ও ত্রাণ সহায়তা পেলেও বিএনপির পক্ষ থেকে কিছুই পাননি তারা।

কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে কয়েকজন নেতা নিজ উদ্যোগে জেলার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সামর্থ্য অনুযায়ী সুরক্ষা সামগ্রী ও ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন। কিছু নেতার কারণে দলের ত্যাগী কর্মীরা সুবিধাবঞ্চিত হচ্ছে। বিষয়টি হাইকমান্ডে জানানো হয়েছে। অভ্যন্তরীণ সমস্যাগুলোর সমাধান করে কিশোরগঞ্জ বিএনপিকে আবারো শক্তিশালী অবস্থানে নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/এইচএন