পদ্মায় ধরা পড়া ঘড়িয়াল অতিথি হয়ে এলো সাফারি পার্কে

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৯ ১৪২৭,   ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২

পদ্মায় ধরা পড়া ঘড়িয়াল অতিথি হয়ে এলো সাফারি পার্কে

গাজীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০২:২৭ ২২ অক্টোবর ২০২০  

সাফারি পার্কে যুক্ত হলো আরো একটি ঘড়িয়াল

সাফারি পার্কে যুক্ত হলো আরো একটি ঘড়িয়াল

রাজবাড়ীর পাংশায় পদ্মা নদীতে ধরা পড়া ঘড়িয়ালটিকে গাজীপুরের শ্রীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে আনা হয়েছে। বুধবার রাত সোয়া ৯টায় সাফারি পার্কে ঘড়িয়ালটি অবমুক্ত করা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান।

বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিদর্শক আবদুল্লাহ আস সাদিক ঘড়িয়ালটিকে সাফারি পার্কে নিয়ে আসেন। তিনি জানান, গত মঙ্গলবার দুপুরে পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির শাহাপাড়া গ্রামে পদ্মা নদীতে এক জেলের জালে ঘড়িয়ালটি ধরা পড়ে। জেলে বাদশা মিয়া এটিকে হাবাসপুর বাজারে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করতে চেয়েছিলেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের একটি গ্রুপে ঘড়িয়ালের ছবিটি প্রকাশ হয়। এ তথ্য পেয়ে বন সংরক্ষক (বন্য প্রাণী) মিহীর কুমার দো বিষয়টি বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের নজরে আনেন।

পরে আবদুল্লাহ আস সাদিক সংশ্লিষ্ট ইউপির চেয়ারম্যান আবদুল আলীমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। চেয়ারম্যানকে প্রাণীটির বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে নিরাপত্তা দিতে বলেন। চেয়ারম্যান ঘড়িয়ালটিকে সামাজিক বন বিভাগ ফরিদপুরের কাছে হস্তান্তর করার ব্যবস্থা করেন। বুধবার বেলা ২টায় প্রাণীটি বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর বিশেষ ব্যবস্থাপনায় প্রাণীটিকে গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে অবমুক্ত করা হয়।

বন বিভাগের সরীসৃপবিদ সোহেল রানা জানান, এটি পুরুষ ঘড়িয়াল। বয়স হতে পারে ১ বছর। দৈর্ঘ্য ৪ ফুট ২ ইঞ্চি। ওজন ১৫ কেজির মতো হবে।

সাফারি পার্কের ওয়াইল্ডলাইফ সুপারভাইজার মো. আনিসুর রহমান বলেন, এটিকে আনার পর পার্কের নির্দিষ্ট স্থানে নিয়ম মেনে অবমুক্ত করা হয়েছে। ঘড়িয়াল সারা পৃথিবীতেই মহা বিপদাপন্ন। বাংলাদেশের মিঠা পানিতে একসময় হরহামেশাই ঘড়িয়াল দেখা যেত। কিন্তু এখন একদমই কমে গেছে।

বন্য প্রাণী বিশেষজ্ঞদের মতে জলচর এ ঘড়িয়াল অত্যন্ত শান্ত প্রকৃতির হয়। এরা দৈর্ঘ্যে ৪ থেকে ৭ মিটার হয়। বাংলাদেশে একসময় বিভিন্ন নদীতে ঘড়িয়াল দেখা যেত। বিশেষ করে পদ্মা, যমুনা, ব্রহ্মপুত্র ও এর শাখা-প্রশাখায় এদের দেখা মিলত। এদের দেখা যেত পাকিস্তান, ভারত, নেপাল, ভুটানসহ এশিয়ার কয়েকটি দেশে। ঘড়িয়াল নদীর পাড়ে গর্ত খুঁড়ে সেখানে ডিম পাড়ে। ডিম পেড়ে তা মাটি দিয়ে ঢেকে দেয়। এরপর সেগুলো থেকে নির্দিষ্ট সময় অন্তর বাচ্চা বের হয়।

সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান জানান, পার্কে আগে থেকেই ছয়টি ঘড়িয়াল আছে। এরমধ্যে একটি স্ত্রী। বাকি সব পুরুষ। আজ আরো একটি নতুন পুরুষ ঘড়িয়াল যোগ হয়েছে। বর্তমানে সাফারি পার্কে ঘড়িয়ালের সংখ্যা হলো সাতটি। উদ্ধার করে আনা ঘড়িয়ালটি বিশেষ তত্ত্বাবধানে থাকবে। এটি কিছুটা শারীরিক দুর্বলতায় ভুগছিলো।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম