জমকালো বিয়ে মুহূর্তেই হয়ে গেল কুলখানি, নিভলো সব আলো!

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৫ ১৪২৭,   ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জমকালো বিয়ে মুহূর্তেই হয়ে গেল কুলখানি, নিভলো সব আলো!

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:০৬ ১৮ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৯:১১ ১৮ অক্টোবর ২০২০

ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি টের পেয়ে বিয়ে হয়ে গেল দাদার কুলখানি। ছবি: সংগৃহীত

ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতি টের পেয়ে বিয়ে হয়ে গেল দাদার কুলখানি। ছবি: সংগৃহীত

জমকালো বিয়ের অনুষ্ঠান মুহূর্তেই হয়ে গেল কুলখানি! যে বাড়িতে সাজ সাজ রব, চারদিকে নানা রকমের আলোকসজ্জা, মুহূর্তেই যেন সব নিভে গেল! হয়তো ভাবছেন, বিয়ের অনুষ্ঠান চলাকালে কেউ মারা গেছে। কিন্তু গল্পটা একটু অন্যরকম! বাল্যবিয়ের অনুষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের টের পেয়ে ‘দাদার কুলখানির’ নাটক সাজানো হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের মান্দারপুর গ্রামে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবা খান কনের বাড়িতে গেলে পরিবারের লোকজন জানান, আলোচিত কনের দাদার কুলখানির আয়োজন করা হয়।

তবে পরিবারের লোকজনের কথার সত্যতা ছিল না। আগে থেকেই তথ্য পেয়ে সেই অনুষ্ঠানে হাজির হন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। পরে হাসিবা খান প্রমাণ করে দেন যে, এটি আসলেই বিয়ে বাড়ি। পরে অবশ্য কনের পরিবারের লোকজন বিয়ে না দেওয়ার মুচলেকা দেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবা খান জানান, রোববার ওই গ্রামের এক প্রবাসীর কন্যার বিয়ের দিন ধার্য ছিল। কনে নবম শ্রেণির ছাত্রী হওয়ার বিষয়টি এক সংবাদকর্মীর মাধ্যমে খবর পেয়ে দুপুরে তিনি বিয়েবাড়িতে হাজির হন। ওই কনের হাতে মেহেদি লাগানো দেখে বিষয়টি তিনি নিশ্চিত হন।

তবে পরিবারের লোকজন জানান, আলোচিত ওই কনের দাদার কুলখানি উপলক্ষে খাবারদাবারের আয়োজন করা হয়। নবম শ্রেণি পড়ুয়া ওই মেয়ে এমনিতেই হাতে মেহেদি দেয়। কিন্তু সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বিয়ে আয়োজনের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে কনের পরিবারের কাছ থেকে মুচলেকা আদায় করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে