বেকার ইঞ্জিনিয়ার থেকে সফল উদ্যোক্তা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৯ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১৫ ১৪২৭,   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বেকার ইঞ্জিনিয়ার থেকে সফল উদ্যোক্তা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:২৩ ১৮ অক্টোবর ২০২০  

গোল্ডেন ক্রাউন’

গোল্ডেন ক্রাউন’

চলতি মহামারি পরিস্থিতিতে অনেকেই চাকরি হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন। আবার অনেকে পড়াশোনা শেষ করে চাকরি না পেয়ে হতাশা নিয়ে বেকারভাবে সময় পার করেন। আর তাসনিম আলম তুহিনের মতো যুবক হতাশ না হয়ে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেন। ‘গোল্ডেন ক্রাউন’ এবং ‘ব্লাক বেরি’তে নিজের ভাগ্যের চাকা ঘুরান তিনি।

স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তা ও অন্যান্যদের সহযোগিতায় দুই বিঘা জমিতে অসময়ের তরমুজ ‘গোল্ডেন ক্রাউন’ চাষ শুরু করেন তুহিন। এর মধ্যে এক বিঘাতে ‘গোল্ডেন ক্রাউন’ (উজ্জল হলুদ রঙের)’ এবং এক বিঘাতে ‘ব্লাক বেরি’ (কালো রঙের)’ জাতের তরমুজ রয়েছে। অসময়ের এ তরমুজ ‘গোল্ডেন ক্রাউন’ চাষে সফলতাও পেয়েছেন তিনি।

জেলায় প্রথম চাষ হাওয়া নতুন এ তরমুজটি দেখতে উজ্জল সোনালী হলুদ রঙের। তরমুজটি অধিক পুষ্টিগুণ সম্পন্ন এবং বার্ধক্য প্রতিরোধে সহায়ক। কৃষক তুহিন প্রথম ধাপেই প্রায় এক লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করেছেন। যাতে উঠে এসেছে উৎপাদন খরচ। খেতের বাকি তরমুজ বিক্রি করে আসবে লভ্যাংশ।

তুহিন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাধুহাটী ইউপির মাহমুদপুর গ্রামের সন্তান। তিনি জানান, একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কয়েক বছর আগে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে লেখাপড়া শেষ করে চাকরির চেষ্টা করেন। কিন্তু চাকরি পাননি। এরপর মহামারি এলে ভাবলাম চাকরির জন্য চেষ্টা না করে গ্রামে গিয়ে কৃষি কাজ শুরু করবো। মহামারির মধ্যে ঢাকায় বসে না থেকে গ্রামে চলে আসি।

বিভিন্ন সময় ইউটিউবে কৃষি কাজ সংক্রান্ত অনেক ভিডিও দেখতাম। এরপর স্থানীয় ব্লক সুপারভাইজার মিলন কুমার ঘোষের সহযোগিতায় চুয়াডাঙ্গা জেলার জাফরপুর বাজার থেকে ৫ হাজার ৩শ টাকা দিয়ে বীজ কিনে খেতে বপন করি। পরিচর্যা শেষে ৫৮ দিনের মাথায় ফল সংগ্রহ করেছি।

তিনি আরো জানান, গোল্ডেন ক্রাউন জাতের তরমুজ বিক্রি করেছি ৪৫ মণ। আরও ২০ মণ বিক্রি করতে পারব। এছাড়া আগামী সপ্তাহে ব্লাক বেরি জাতের প্রায় ৮০ মণ তরমুজ বিক্রি করতে পারব। এখন পর্যন্ত দুই বিঘা জমিতে মোট খরচ হয়েছে ৯০ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে বিক্রি শেষ আমার লাভ থাকবে দুই লাখ টাকার মতো।

স্থানীয় সাধুহাটি ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মিলন কুমার ঘোষ জানান, অসময়ের এই তরমুজের বীজ সাধারণত এপ্রিল থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত খেতে বপন করা যায়। এরপর ৫০ দিন পর থেকেই ফল বিক্রির উপযোগী হয়। আমরা উপজেলা কৃষিকর্মকর্তার সহযোগিতায় বেড তৈরি, পোকামাকড় দমন, ফলের মান ভালো রাখার নানা কৌশল সম্পর্কে তাকে নিয়মিত পরামর্শ দিয়েছি যার ফলে তুহিন ভালো মানের ফল পেয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম জানান, পানি নিষ্কাশন ও বেলে দো-আঁশ মাটি তরমুজ চাষের জন্য বেশি উপযোগী যা ঝিনাইদহে বিদ্যমান। আর মান ভালো হওয়ায় ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে এ জেলার তরমুজের চাহিদা রয়েছে অনেক। তাই এই চাষ সম্প্রসারণে চাষিদের ব্যাপকভাবে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস