বোনের সহযোগিতায় কিশোরীকে ধর্ষণ, তিন আসামি রিমান্ডে

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৯ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১৪ ১৪২৭,   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বোনের সহযোগিতায় কিশোরীকে ধর্ষণ, তিন আসামি রিমান্ডে

চট্টগ্রাম মহানগর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৫:০৪ ২ অক্টোবর ২০২০  

তিন আসামি রিমান্ডে

তিন আসামি রিমান্ডে

চট্টগ্রাম নগরীর ডবলমুরিং থানার সুপারিওয়ালাপাড়া এলাকায় কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার তিন আসামিকে তিনদিনের রিমান্ডে নেয়ার আদেশ দিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম খায়রুল আমীনের আদালত এ আদেশ দেন।

ডবলমুরিং থানার ওসি সদীপ কুমার দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রিমান্ডের আদেশপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- নুরী আক্তার ও তার স্বামী মো. অন্তর এবং রাজিব হোসেন।

এর কয়েকদিন আগে ফেনী থেকে নগরীর আগ্রাবাদ সিডিএ এলাকায় ফুফুর বাসায় বেড়াতে আসেন ওই কিশোরী। সেখান থেকে রোববার সন্ধ্যায় বেড়াতে নেয়ার কথা বলে তাকে সুপারিওয়ালাপাড়া এলাকার চান্দু মিয়ার বাসায় নিয়ে যান ফুফাতো বোন স্মৃতি ও তার বান্ধবী নুরী আক্তার। সেখানে চান্দু মিয়ার দ্বারা ধর্ষণের শিকার হন তিনি। পরে বাসায় ফিরে বিষয়টি ফুফাকে জানালে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করেন। অভিযোগ পেয়ে ওই রাতেই নুরী আক্তার ও তার স্বামী মো. অন্তর এবং রাজিব হোসেনকে আটক করে পুলিশ।

তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিলেন মূল অভিযুক্ত চান্দু মিয়া। মঙ্গলবার ভোরে নগরীর পতেঙ্গা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটকের পর একইদিন বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম খাইরুল আমীনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন চান্দু মিয়া।

জবানবন্দিতে তিনি জানান, এক হাজার টাকার বিনিময়ে ওই কিশোরীকে চান্দু মিয়ার বাসায় দিয়ে যান তারই ফুফাতো বোন স্মৃতি ও তার বান্ধবী নুরী আক্তার। এরপর কৌশলে সটকে পড়েন তারা।

চান্দু মিয়ার জবানবন্দি পেয়ে ওই রাতেই স্মৃতিকে হেফাজতে নেয় পুলিশ। পরদিন বুধবার ঘটনার বর্ণনা দিয়ে পুলিশের কাছে জবানবন্দি দেন ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী। এরপরই স্মৃতিকে আটক দেখায় পুলিশ। এ ঘটনায় কিশোরীর মা বাদী হয়ে ডবলমুরিং থানায় মামলা দায়ের করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম