একেই বলে মা!

ঢাকা, শনিবার   ৩১ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১৬ ১৪২৭,   ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

একেই বলে মা!

রংপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩২ ১ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৭:৩৬ ১ অক্টোবর ২০২০

দুই সন্তানকে বাঁচাতে গিয়ে মা-ছেলের মৃত্যু

দুই সন্তানকে বাঁচাতে গিয়ে মা-ছেলের মৃত্যু

স্নেহ মমতার মূর্ত প্রতীক মা। মায়ের তুলনা হয় না। সন্তানের জন্য জীবন বিলিয়ে দিতে কুণ্ঠাবোধ করেন না মা। সন্তানের যেকোনো বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। আবারো এক ঘটনার মধ্য দিয়ে প্রমাণ মিলল তার।  

বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর নগরীর জুম্মাপাড়া এলাকায় এ দৃষ্টান্তের ঘটনা ঘটে। 

বড় ছেলেকে বাঁচাতে পারলেও পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে মা রোকেয়া বেগম ও তার ছোট ছেলে রিমন মিয়ার। বড় ছেলে রোহান মিয়াকে মুমূর্ষু অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জলাবদ্ধতায় রংপুরে নগরীর মিস্ত্রিপাড়া থেকে জুম্মাপাড়া যাওয়ার প্রায় চার কিলোমিটারের রাস্তা হাঁটুপানিতে ডুবে আছে। এর মাঝে প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে নিচু এলাকা হওয়ায় পানি থৈ থৈ অবস্থা। বিকল্প রাস্তা দিয়ে অনেক দূর ঘুরে যেতে হয় গন্তব্যে। এজন্য এলাকাবাসী মাত্র চার ফিট প্রশস্ত একটি সরু রাস্তা দিয়ে চলাচল করছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মা রোকেয়া বেগম বাড়ি থেকে ছোট ছেলে রিপনকে সঙ্গে নিয়ে জলাবদ্ধতার কারণে সৃষ্টি হওয়া পানি মাড়িয়ে বড় ছেলে রোহানকে তার করিমিয়া মাদরাসায় পৌঁছে দেয়ার জন্য যাচ্ছিলেন। এ সময় বড় ছেলে রোহান পা পিঁচলে গভীর পানিতে পড়ে যায়। এ সময় রোকেয়া বেগম ছোট ছেলেকে রেখে বড় ছেলেকে বাঁচাতে পানিতে ঝাঁপ দিয়ে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় ছোট ছেলে পাশে অথৈ পানিতে তলিয়ে যায়। 

এবার ছোট ছেলেকে উদ্ধার করতে মা রোকেয়া বেগম আবারো পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে। কিন্তু এর পর তারা দুইজনের আর কেউ পানি থেকে উঠে আসতে পারেনি। পরে এলাকাবাসী অনেক খোঁজাখুঁজির পর তাদের উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মা ছেলেকে মৃত ঘোষণা করেন। মুমূর্ষু অবস্থায় বড় ছেলেকে মেডিকেলে ভর্তি করানো হয়েছে। 

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মা ও ছেলের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার এসআই স্বপন রায়।

এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে