ভারতীয়দের টপকে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশি পার্থ

ঢাকা, শনিবার   ৩১ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১৬ ১৪২৭,   ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ভারতীয়দের টপকে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশি পার্থ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৯ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ২০:২৬ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

ভারতীদের টপকে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশি পার্থ

ভারতীদের টপকে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশি পার্থ

ছাত্র জীবনেই বাজিমাত। এ বাজিমাতই হয়ে গেল বিশ্ব রেকর্ড। সেফটি পিন দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ চেইন তৈরি করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লেখালেন বাংলাদেশি ছেলে পার্থ চন্দ্র দেব। ২০১৮ সালে করা ভারতীয় হার্শা নান ও নাভার রেকর্ডটি ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়লেন পার্থ।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর ডাকযোগে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্বীকৃতির সনদ তার হাতে এসে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন পার্থ। পার্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের ফান্দাউক ইউপির ফান্দাউক গ্রামের জগদীশ দেবের ছোট ছেলে।

পার্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে বিএসএস (ডিগ্রি) শেষ বর্ষে অধ্যয়নের পাশাপাশি হবিগঞ্জের সাঙ্গবেদ সংস্কৃতি কলেজর ব্যাকরণতীর্থ ও স্মৃতিতীর্থ (আদ্য) বিভাগে পড়াশোনা করছেন। পার্থ শুধু শিক্ষা নিয়েই ব্যস্ত থাকেন না, সহায়তা করেন বাবার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করা বড় ভাইকেও।

বিশ্ব রেকর্ড করা পার্থের চেইনের দৈর্ঘ্য দুই হাজার ৪০১ দশমিক ৮৩ মিটার বা সাত হাজার ৮৮০ ফুট শূন্য দশমিক দুই ইঞ্চি। এ চেইন পরিমাপ করা হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের স্থানীয় শ্রীশ্রী পাগল শংকর মন্দিরে।

চেইন তৈরির ব্যাপারে পার্থ বলেন, গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস খুঁজতে গিয়ে সেফটি পিন দিয়ে সবচেয়ে দীর্ঘতম চেইন তৈরির বিষয়টি মাথায় আসে। তাই বিষয়টি নিয়ে আরো বেশি খোঁজাখুঁজি করি। ফলে ভারতের হার্শা নান ও নাভা নান যৌথভাবে সেফটি পিন দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম চেইন তৈরির রেকর্ডটি দেখতে পাই। তারা রেকর্ডটি করেছিলেন ২০১৮ সালের ২৩ এপ্রিল। ভারতীয়দের তৈরি করা চেইনটির দৈর্ঘ্য ছিল এক হাজার ৭৩৩ দশমিক এক মিটার।

তিনি আরো বলেন, সেখান থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই ছোট ছোট দুই সেন্টিমিটার আকারের সোনালি রঙের সেফটি পিন কিনি। সেই পিন দিয়ে সবচেয়ে দীর্ঘ চেইন তৈরির পরিকল্পনা শুরু করি। ২০১৯ সালে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নিবন্ধিত হওয়ার পাশাপাশি ২০ এপ্রিল আবেদন করি। পরে ১৯ জুলাই চেইন তৈরির অনুমতি ও পরামর্শ দেয় গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষ।

রেকর্ড প্রপ্তির প্রক্রিয়ার ব্যাপারে পার্থ বলেন, গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস প্রাপ্তিতে দুইজনকে সাক্ষী রাখতে হয়েছে। আর চেইন পরিমাপের জন্য ছিলেন একজন স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সার্ভেয়ারও। সব মিলিয়ে ১৪ ধরনের প্রমাণ জমা দিতে হয়েছে। গত বছরের ২৩ জুলাই থেকে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ চেইন তৈরির মিশন শুরু করি। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত টানা কাজ করতে থাকি। ১৩ হাজার ৩৭০ টাকায় এক লাখ ৮৭ হাজার ৮২৩টি সোনালি রঙের দুই সেন্টিমিটার আকারের সোনালি রঙের সেফটি পিনেই হয় বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম চেইন। এতে মোট সময় লাগে ২৪১ ঘণ্টা ৪২ মিনিট।

পার্থ বলেন, ফান্দাউকের স্বীকৃতপ্রাপ্ত সার্ভেয়ার তোফাজ্জল শাহ মারজান আমার তৈরি করা বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম চেইন পরিমাপ করেন। এ সময় সাক্ষী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফান্দাউক পণ্ডিতরাম উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পল্লব হালদার ও হবিগঞ্জের লাখাই মুক্তিযোদ্ধা সরকারি ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক রাজীব কুমার আচার্য।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ