অন্যায়-অত্যাচারে অতিষ্ট, ছেলের বিরুদ্ধে বৃদ্ধ বাবার সংবাদ সম্মেলন

ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১০ ১৪২৭,   ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

অন্যায়-অত্যাচারে অতিষ্ট, ছেলের বিরুদ্ধে বৃদ্ধ বাবার সংবাদ সম্মেলন

দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৪:৫৭ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ছেলের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বৃদ্ধ বাবা ডা. ছৈয়দুর রহমান (ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ)

ছেলের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বৃদ্ধ বাবা ডা. ছৈয়দুর রহমান (ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ)

জাল দলিল করে সম্পদ হাতিয়ে নেয়া, নিজের প্রতিবন্ধী ভাইকে হত্যা, অসহায় বাবাকে মারধর, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করাসহ বিভিন্ন অন্যায়-অত্যাচারের বিচার চেয়েছেন অসহায় এক বৃদ্ধ বাবা।

বুধবার বেলা ১১টায় দেবিদ্বার নিউ মার্কেটের একটি রেস্তোরাঁয় ছেলে দেলোয়ারের নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পেতে মুরাদনগর উপজেলার বাইড়া গ্রামের ৮৫ বছরের বৃদ্ধ ডা. ছৈয়দুর রহমান এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, নির্যাতিত ছৈয়দুর রহমানের দুই ছেলে মো. শাহাদত হোসেন ভূঁইয়া, শেখ মো. মোহন, বড় জামাতা সাবেক ইউপি সদস্য মো. শহীদুল হক ভূঁইয়া।

আরো পড়ুন: চাঁদা না দেয়ায় ছাত্র-ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ

সংবাদ সম্মেলনে অসহায় ওই বৃদ্ধ পিতা জানান, আমার ছেলে দেলোয়ার খুব জঘন্য। তাকে সম্পত্তি লিখে দেয়ার জন্য সে আমার ওপর চাপ সৃষ্টি করে বিভিন্ন সময়ে শারীরিক নির্যাতন করে আসছে। এমনকি আমার অন্য ছেলেদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মিথ্যা অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছে। তার অত্যাচারের কারণে আমি দীর্ঘ ৭ মাস বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। আমি তার অত্যাচার থেকে বাঁচতে বিভিন্ন মহলে গিয়েও কোনো প্রতিকার পাইনি। সবশেষে আমি সাংবাদিকদের দ্বারস্থ হয়েছি।

দেলোয়ার মানসিক প্রতিবন্ধী ছেলে সুমনকে হত্যা করে বৃদ্ধ পিতা ছৈয়দুর রহমান তার লিখিত বক্তব্যে এই অভিযোগ করেন। তিনি আরো বলেন, সুমন যেদিন মারা যায় তার দু’দিন আগে রাত সাড়ে ১০টার দিকে দেলোয়ার সুমনকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এর দুইদিন পর দেবিদ্বার উপজেলার গোপালনগরের একটি খাল থেকে সুমনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ সংক্রান্ত আমি আদালতে দেলোয়ারকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছি। যা বর্তমানে চলমান রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, দেলোয়ার আমাকে মানুষের কাছে পাগল মানসিক রোগী ও স্ট্রোক করেছি বলে মিথ্যা কথা বলে বেড়ায়। প্রকৃতপক্ষে আমি সুস্থ ও স্বজ্ঞানে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য প্রদান করছি। আদালতে মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে রাজি না হওয়ায় আমার মৃত প্রতিবন্ধী ছেলের বউ হাসিনা আক্তার ১৫ মাস ধরে তার বাবার বাড়িতে এক ছেলে নিয়ে অসহায় দিনযাপন করছে। সে আমাকে নানাভাবে হত্যার হুমকি দেয়। আমার অন্য ছেলেদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসাবে বলেও হুমকি দেয়।

এমনকি দেলোয়ার আমার নাতি-নাতনিদের সম্পত্তি ভোগদখল করার জন্যও তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানি করে আসছে। তার নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে আমার পুরো পরিবারকে। তার কারণে আমার পুরো পরিবার ধ্বংস হয়ে গেছে। আমার বয়স প্রায় শেষ, এ বয়সেও তার অত্যাচার থেকে রেহাই পাচ্ছি না। নিজ পুত্র দেলোয়ার একজন মামলাবাজ, প্রতারক, ধান্ধাবাজ, ভূমিদস্যু, ডাকাত আখ্যায়িত করে তাকে শাস্তি দেয়ার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ওই বৃদ্ধ পিতা।

আরো পড়ুন: কাঁটাতারের সীমানায় আটকে গেল ভারতীয় তরুণীর প্রেম

ছৈয়দুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ মো. মোহন সাংবাদিকদের জানান, তার ভাই দেলোয়ারের মিথ্যা মামলায় আমাদের পুরো পরিবার অতিষ্ঠ। সে আমার বাবাকে প্রকাশ্যে দা দিয়ে কুপিয়েছে। যার দাগ বাবার শরীরের এখনো আছে। সংবাদ সম্মেলনে আমার বড় ভাই শাহাদত হোসেন উপস্থিত আছেন তিনি সবকিছু দেখেছেন। দেলোয়ার আমার এ ভাইয়ের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে। আমরা তার সুষ্ঠু তদন্ত-পূর্বক বিচার চাই।

ছৈয়দুর রহমানের বড় ছেলে শাহাদত হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, দেলোয়ার একজন লোভী মানুষ। তার অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়েছে এলাকার বহু মানুষ। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার ও প্রতিকার চাই।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুত্র দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমার ভাইয়েরা আমার বাবাকে ব্যবহার করে আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যা কিছু অভিযোগ দায়ের করেছে। আমার বাবা গত এক বছর ধরে বাড়িতে নেই। আমার নামে ষড়যন্ত্র করছে। আমি কারো বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করিনি। তারা আমার বাবাকে মিথ্যা কথা বলাতে বাধ্য করছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম