সুনামগঞ্জে সিমেন্ট জালিয়াতি, এমডিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

ঢাকা, বুধবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৮ ১৪২৭,   ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

সুনামগঞ্জে সিমেন্ট জালিয়াতি, এমডিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৩৩ ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সুনামগঞ্জের ছাতক সিমেন্ট কারখানায় সিমেন্ট জালিয়াতির ঘটনায় চার কর্মকর্তা ও একজন ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। সাবেক দুই ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ চার কর্মকর্তার নাম উল্লেখ করে সিলেট দুর্নীতি দমন সমন্বিত জেলা কার্যালয় এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন। 

সম্প্রতি সুনামগঞ্জ স্পেশাল আদালতে দাখিল করা অভিযোগপত্রে একজন ডিলার ও ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরির চারজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সিমেন্ট জালিয়াতির মাধ্যমে ১ কোটি ৬০ লাখ ৯৫ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।  

অভিযুক্তরা হলেন কারখানার সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক নেপাল কৃষ্ণ হাওলাদার ও কাজী রুহুল আমীন, উপ-মহাব্যবস্থাপক আব্দুল বারী ও উপ প্রধান হিসাব রক্ষক সিরাজুল ইসলাম এবং কারখানার নিবন্ধিত ডিলার রুবেল মিয়া। 

জানা যায়, ছাতক সিমেন্ট কারখানার সিমেন্ট জালিয়াতির অভিযোগ এনে এবং জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে ২০১৮ সালের ৩ জানুয়ারি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন ঢাকা, পুলিশ মহাপরিচালক, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিসিআইসি কেন্দ্রীয় কার্যালয়, দুর্নীতি দমন কমিশন সিলেট ও সুনামগঞ্জ ডিসি বরাবরে পৃথক লিখিত অভিযোগ দেন শহরের ফকিরটিলা এলাকার শাহ তেরা মিয়ার ছেলে শাহ আরজ মিয়া। 

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সম্পা অ্যান্ড সন্স এবং হানিফ এন্টাপ্রাইজের মালিক রুবেল মিয়া ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর থেকে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত পূবালী ব্যাংক ছাতক সিমেন্ট কারখানা শাখার কর্মকর্তার স্বাক্ষর জাল করে ৮টি ভুয়া ক্রেডিট ভাউচারের মাধ্যমে সিমেন্ট তোলার জন্য কারখানার সংশ্লিষ্ট শাখায় জমা দিয়ে ৯২ লাখ ৫০ হাজার টাকার সিমেন্ট তুলে নেয়। 

এ ছাড়া রূপালী ব্যাংক রাজধানীর কাপ্তান বাজার শাখার সাবেক ম্যানেজার মাসুদুর রহমান ও কর্মকর্তা বিকাশ দত্তের যোগসাজশে ২ কোটি টাকার ভুয়া ব্যাংক গ্যারান্টি সনদ-জালিয়াতির মাধ্যমে আরো ১ কোটি ৬০ লাখ ৯৫ হাজার টাকার সিমেন্ট তুলেছেন বলে মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। 

১৩ ডিসেম্বর ছাতক পূবালী ব্যাংকের দেয়া মাসিক হিসাব বিবরণীতে এ ভয়াবহ জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়ায় কারখানার হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা রেজাউল আলম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এটি ছিল ছাতক সিমেন্ট কারখানার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সিমেন্ট জালিয়াতির ঘটনা। 

ব্যাংক গ্যারান্টি ও ক্রেডিট ভাউচার জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়লে অভিযুক্ত সিমেন্ট ডিলার রুবেল মিয়া, কারখানা কর্তৃপক্ষের কাছে টাকা আত্মসাতের দায় স্বীকার করে ৩০০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে একটি অঙ্গীকার নামায় স্বাক্ষর করেন এবং জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাৎ হওয়া ২ কোটি ৫৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকা ফেরত দেয়ার জন্যও ডিলার রুবেল মিয়া তিনটি ব্যাংকের নিজ একাউন্টের ২৭টি চেকে স্বাক্ষর করে কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেন। 

এ সময় সম্পা ও হানিফ এন্টারপ্রাইজের নামে ভুয়া ৮টি ভাউচারে ৯২ লাখ টাকা আত্মসাতরে অভিযোগে কর্তৃপক্ষ কারখানার সহকারী প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা আতিকুল হক, হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা রেজাউল করিম ও হিসাব রক্ষণ বিভাগের কম্পিউটার অপারেটর ইছতিয়ার আলমকে অফিসিয়্যাল নোটিশ প্রদান করেন। 

এ সময় জালিয়াতির বিষয়ে ২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর ছাতক সিমেন্ট কারখানা থেকে বিসিআইসি বোর্ড চেয়ারম্যানকে লিখিতভাবে জানানো হয়। ২০১৮ সালের ৩ জানুয়ারি ৩৭৭ তম সিসিসিএল এন্টারপ্রাইজ বোর্ড সভায় অর্থ আত্মসাত ও জালিয়াতির বিষয়টি উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। 

ওই সভায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের একজন উপ-সচিব ও বিসিআইসি প্রধান কার্যালয়ের দু’জন কর্মকর্তা সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়। পরবর্তীতে ওই গঠিত তদন্ত কমিটির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে জালিয়াতির বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নেয়ার সুপারিশ করা হয়। 

জালিয়াতির ঘটনার প্রায় ৯ মাস পর কারখানার অতিরিক্ত ব্যবস্থাপক, বিভাগীয় প্রধান (প্রশাসন) রেজাউল করিম বাদী হয়ে ছাতক থানায় দুটি মামলা দায়ের করেন। ওই দুই মামলায় ডিলার রুবেল মিয়াকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। 

এ ছাড়া মামলা দুটির একটিতে রূপালী ব্যাংক ঢাকা কাপ্তান বাজার শাখার সাবেক ম্যানেজার মাসুদুর রহমান ও একই শাখার সাবেক সিনিয়র কর্মকর্তা বিকাশ দত্তকেও আসামি করা হয়। 

ব্যাংকের সাবেক ম্যানেজার মাসুদুর রহমান ও কর্মকর্তা বিকাশ দত্তের যোগসাজশে ২ কোটি টাকার ভুয়া ব্যাংক গ্যারান্টি সনদ জালিয়াতির মাধ্যমে ১ কোটি ৬০ লাখ ৯৫ হাজার টাকার সিমেন্ট তুলেছেন বলে মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে। 

এদিকে সিমেন্ট জালিয়াতির ঘটনায় বিসিআইসি কার্যালয় থেকে দায়িত্ব অবহেলা ও গাফিলতির কারণে ওই সময় ছাতক সিমেন্ট কারখানার সাবেক (ভারপ্রাপ্ত) ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী রুহুল আমিন, জিএম (ভারপ্রাপ্ত) প্রকৌশলী আবু সাঈদ, সাবেক জিএম (ভারপ্রাপ্ত), অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী নেপাল কৃষ্ণ হালাদার, উপ-মহাব্যবস্থাপক আব্দুল বারী, উপ-প্রধান হিসাব রক্ষক সিরাজুল ইসলাম, সহ-প্রধান হিসাব রক্ষক আতিকুল হক ও হিসাব কর্মকর্তা রেজাউল করিমকে নোটিশ প্রদান করে ১০দিনের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়। 

ঘটনার প্রায় ৯ মাস পর কারখানা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ছাতক থানায় মামলা দায়ের করা হয় এবং প্রায় ২ বছর পর ডিলার রুবেল মিয়াসহ সিমেন্ট কারখানার ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদক সিলেটের সমন্বিত জেলা কার্যালয় চার্জশিট প্রদান করে ।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ