ছত্রভঙ্গ মাদারীপুর বিএনপি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২২ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৭ ১৪২৭,   ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ছত্রভঙ্গ মাদারীপুর বিএনপি

মাদারীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪০ ৭ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১৫:৪৭ ৭ আগস্ট ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

দলীয় নীতিমালা ভঙ্গ, কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ না মানা, নেতাকর্মীর মধ্যে ঐক্য না থাকাসহ বিভিন্ন কারণে ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েছে মাদারীপুর জেলা বিএনপি। এ কারণে করোনা মহামারি ও বন্যায় জনগণের পাশে দেখা যায়নি নেতাকর্মীদের।

জানা গেছে, দলীয় নীতিমালা ভঙ্গ করে উপজেলা ও ইউনিট কমিটি গঠন করায় চার মাস আগে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি স্থগিত করা হয়েছে। একইসঙ্গে জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও পৌর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটিও স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এসব কমিটির কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরনের কমিটি গঠন ও পুনর্গঠন কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপি। এরপর নির্দেশনা উপেক্ষা করে মাদারীপুর সদর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা দেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো. জাফর আলী মিয়া। এক্ষেত্রে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব জাহান্দার আলী জাহানের অনুমোদন নেননি তিনি। বিষয়টি কেন্দ্রীয় কমিটিতে জানান পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। এ কারণে মাদারীপুর জেলা, উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছে হাইকমান্ড।

মাদারীপুরের বিএনপির কর্মীরা জানান, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো. জাফর আলী মিয়া ও সদস্য সচিব জাহান্দার আলী জাহান কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন ছাড়াই বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিট আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেন। এসব কমিটিতে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের স্থান না দিয়ে স্বজনপ্রীতি করা হয়েছে। এ কারণে জেলা বিএনপিতে কোন্দল দেখা দিয়েছে। সিনিয়র নেতাদের নির্দেশ না পাওয়ায় করোনা মহামারি ও বন্যায় কোনো কর্মসূচি পালন করা হয়নি।

২০১৯ সালের ১৯ জুন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। তিনমাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার নির্দেশনা থাকলেও তা হয়নি। এ কারণে জেলা কমিটিরও মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। এরপরই অভিভাবকহীন-ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েন মাদারীপুর বিএনপির সব নেতাকর্মী।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মো. জাফর আলী মিয়া বলেন, করোনাভাইরাস মহামারি ও বন্যায় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্যই কিছু উপজেলা ও পৌর কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এসব কমিটির নেতাকর্মীদের নামই অনুমোদনের জন্য হাইকমান্ডে পাঠানোর পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু কয়েকজন নেতাকর্মী এ প্রস্তাবের বিরোধিতা করে হাইকমান্ডে অভিযোগ করেছেন। এ কারণে কমিটি পূর্ণতা পায়নি, করোনা-বন্যায় কোনো কার্যক্রমও হাতে নেয়া সম্ভব হয়নি।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব জাহান্দার আলী জাহান বলেন, অনুমোদিত কমিটি না থাকায় জেলা-উপজেলা ও পৌর বিএনপির নেতাকর্মীরা কিছুটা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েছেন। হাইকমান্ডের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। এ সমস্যা বেশিদিন থাকবে না। নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। এর আগে যেকোনো দুর্যোগে জনগণের পাশে ছিল জেলা বিএনপি। আগামীতেও থাকবে।

কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সহ-গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আনিসুর রহমান খোকন তালুকদার জানান, ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবহেলা করায় মাদারীপুর বিএনপি কিছুটা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েছে। দলকে সুসংগঠিত রাখতে কমিটিগুলোতে ত্যাগী নেতাকর্মীর প্রয়োজন। ঐক্য না থাকায় করোনাভাইরাস মহামারি ও বন্যায় জেলার মানুষের পাশে দাঁড়ানো সম্ভব হয়নি। এ সমস্যা কাটিয়ে উঠে জেলা বিএনপিকে জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। এতে বিএনপি হারানো আস্থা ফিরে পাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ/টিআরএইচ/আরআর