মিঠাপুকুরে জমে উঠেছে পশুর হাট

ঢাকা, শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৭ ১৪২৮,   ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

মিঠাপুকুরে জমে উঠেছে পশুর হাট

মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:০৮ ১০ আগস্ট ২০১৯  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

রংপুরের মিঠাপুকুরে ১৫টি পশুর হাটে গরু ও ছাগল বিক্রি জমে উঠেছে। জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মালিক ও পাইকাররা হাটে গরু, ছাগল সারিবদ্ধ করে রেখেছেন। আর ক্রেতারা তাদের পছন্দের পশু দর কষাকষির মাধ্যমে কিনছেন। এছাড়া হাটের নিরাপত্তায় পর্যাপ্ত পরিমাণ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলার শঠিবাড়ী হাট, শুকুরেরহাট, রানীপুকুর, বৈরাতীহাট, জায়গীরহাট, বালুয়াহাটসহ বিভিন্ন হাটে প্রচুর পরিমাণ গরু ও ছাগল দেখা গেছে। এছাড়া ক্রেতাদের সংখ্যাও অনেক বেশি। এবার দেশীয় গরুতেই ঝুঁকছেন ক্রেতারা। তবে, গতবারের চেয়ে এবার গরু ও ছাগলের দাম চড়া। এছাড়া হাটে প্রাণিসম্পদ বিভাগের চিকিৎসকরা স্বাস্থ্য পরীক্ষার পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ মোতায়েন দেখা গেছে।

গরু ব্যবসায়ী মোন্নাফ মিয়া বলেন, হাটে শান্তিপূর্ণভাবে গরু, ছাগল কেনাবেচা হচ্ছে। বৃষ্টির কারণে দুই দিন ক্রেতাদের উপস্থিতি কম ছিল। কেনাবেচাও কম হয়েছে। তবে শুক্রবার থেকে বেচাকেনার পরিমাণ বেড়েছে। এক ঘণ্টায় আটটি গরুর মধ্যে পাঁচটি গরু বিক্রি করেছি।

রাণীপুকুর হাটের ছাগল ব্যবসায়ী জুয়েল, বালা মিয়া, আতাউর বলেন, গত দুই দিন হাটে ছাগলের দাম কম ছিল। ক্রেতাদের উপস্থিতি বাড়ায় দাম বেড়েছে।

উপজেলার বৃহত্তম শঠিবাড়ী হাট ইজারাদার নুরুল ইসলাম প্রামাণিক লালন বলেন, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার হাটে বেশি পরিমাণে গরু কেনাবেচা হচ্ছে। শুক্রবার দুপুর থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দেড় সহস্রাধিকের চেয়ে বেশি গরু কেনাবেচা হয়েছে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা ডা. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঈদুল আজহা উপলক্ষে উপজেলায় ১৫টির বেশি পশুর হাট বসেছে। এসব হাটে পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য প্রাণিসম্পদ বিভাগের চিকিৎসকরা নিয়োজিত রয়েছেন। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় হাটগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ