‘ধর্ষণে যে নেতাই জড়িত হোক, শাস্তি তাকে পেতে হবে’

ঢাকা, সোমবার   ১৪ জুন ২০২১,   আষাঢ় ১ ১৪২৮,   ০২ জ্বিলকদ ১৪৪২

‘ধর্ষণে যে নেতাই জড়িত হোক, শাস্তি তাকে পেতে হবে’

মাদারীপুর প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৪১ ১৩ মে ২০১৯  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মাদারীপুরের শিবচরে উৎসব হোটেলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই আলম লিটন চৌধুরী বলেন, ধর্ষণের সঙ্গে যে নেতাই জড়িত হোক, তাকে কঠিন শাস্তি পেতে হবে। শিবচরে প্রশাসনের চোখের সামনে বাজারের ভেতরে একাত্তর সড়কের মত জায়গায়, ইউএনও অফিসের ও ওসি সাহেবের চোখের সামনে বলা যায় এবং যেখানে নেতাদের অফিস আছে, সেখানে যদি এ ধরণের ধর্ষণ বা হত্যার মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটে, তাহলে গ্রামগঞ্জে কি ঘটবে?’

রোববার বিকেলে দেলোয়ার হোসেন বেপারির হাটে একটি মসজিদ উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চিফ হুইপ আরো বলেন, ‘২৮-৩০ বছর কষ্ট করে শিবচর যে সুনাম অর্জন করেছে, চারিদিকে শিবচরের যে সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে, দুই-একজনের কারণে তা নষ্ট হয়ে যাবে, আর আমরা বসে বসে চিনাবাদাম খাবো তা হতে পারে না। এ ব্যাপারে আমার জিরো টলারেন্স।’

এসময় চিফ হুইপের সঙ্গে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন শিবচরের পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খানসহ অন্য নেতারা। 

গত ৫ মে শিবচরে উৎসব হোটেল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় ইন্নি আক্তার নামে এক স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত ওই স্কুলছাত্রীর মায়ের দাবি, প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় ইন্নিকে অপহরণ করে রুবেল খান নামে এক তরুণ। পরে তাকে নিয়ে ওই আসাসিক হোটেল নিয়ে ধর্ষণ করে রুবেলসহ তিনজন। ধর্ষণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ইন্নির মৃত্যু হয়।

মাদারীপুরের এসপি সুব্রত কুমার হালদার জানান, গর্ভনিরোধক পিল ও যৌন উত্তেজক সেনেগ্রা ওষুধ খাইয়ে ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে রুবেল খান। এতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হলে রুবেল পালিয়ে যায়। পরে হোটেল কক্ষ থেকে ওই স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হোটেলের কর্মী খায়রুজ্জামান ও রোনাল্ডসহ মূল অভিযুক্ত রুবেল খানকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে বিচারকের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে রুবেল।

ঘটনার পর হোটেলটিকে সিলগালা করে প্রশাসন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ