যেসব দেশে সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক, যোগ না দিলেই শাস্তি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৮ জুন ২০২২,   ১৪ আষাঢ় ১৪২৯,   ২৮ জ্বিলকদ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

যেসব দেশে সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক, যোগ না দিলেই শাস্তি

সাতরং ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৩৮ ২০ জুন ২০২২  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

বিশ্বে এমন অনেক দেশ আছে, যেখানে ব্যক্তির ইচ্ছার বিরুদ্ধেও তাকে যেতে হতে পারে সেনাবাহিনীতে। ইচ্ছার বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে এবং যুদ্ধে যেতে বাধ্য করা এই দেশগুলোর হাজার হাজার যুবক-যুবতীকে। 

উত্তর এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় গত সাত দশক ধরে একে অপরের বিরোধিতা করে আসছে প্রায় সব ক্ষেত্রেই। উভয় দেশই একে অপরের থেকে বেশি শক্তিশালী হওয়ার দৌড়ে সামরিক শক্তি বাড়িয়েই চলেছে।

উত্তর কোরিয়া এক বিশেষ সামরিক নীতি মেনে চলে, যার নাম ‘সোঙ্গুন’। এই নীতি অনুযায়ী, দেশের মধ্যে থাকা সমস্ত সম্পদের উপর সেনাবাহিনীর অগ্রাধিকার রয়েছে। এই নিয়মের ব্যতিক্রম নন সেই দেশের বাসিন্দারাও। কারণ কিমের দেশ নাগরিকদেরও দেশের সম্পদ বলেই মনে করে। মূলত ১৭-১৮ বছর বয়সি সে দেশের স্নাতকদের সেনাদলে যোগদান করানো হয়। আগে নারীদের স্বেচ্ছায় সেনাবাহিনীতে যোগদান করার নিয়ম থাকলেও ২০১৫-র পর থেকে নারীদেরও সেনাবাহিনীতে যোগদান বাধ্যতামূলক করা হয়। ২০০৩ সালে, পুরুষদের কমপক্ষে ১০ বছর এবং নারীদের কমপক্ষে সাত বছর সেনাবাহিনীতে পরিষেবা দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়। তবে তার আগে পুরুষদের জন্য এই সময়সীমা ছিল ১৩ বছর এবং নারীদের জন্য ১০ বছর।

দক্ষিণ কোরিয়াতেও পুরুষদের জন্য সেনায় যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক। পুরুযদের ২১ মাস সেনাবাহিনীতে বা ২৩ মাস নৌবাহিনীতে বা ২৪ মাস বিমানবাহিনীতে যুক্ত থাকা বাধ্যতামূলক। তবে কেউ চাইলে বিকল্প হিসেবে পুলিশ ও দমকলেও যোগ দিতে পারেন। তবে সব ক্রীড়াবিদরা এই নিয়ম থেকে অব্যাহতি পেতে পারেন।

রাশিয়ায় সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার নিয়ম বেশ কঠিন। সদ্য সেনাদলে যোগ দেওয়া সদস্যদের প্রায়শই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের নির্যাতন সহ্য করতে হয় বলে অভিযোগ। সে দেশে এই প্রক্রিয়া ‘হ্যাজিং’ নামে পরিচিত। তবে রাশিয়া অন্য দেশের সঙ্গে সামরিক সঙ্ঘাতের সময় প্রশিক্ষণ না পাওয়া সৈন্যদের ব্যবহার করে বলেও দুর্নাম রয়েছে। ইউক্রেন এবং চেচনিয়ার সঙ্গে রাশিয়ার যুদ্ধ এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

নিয়ম অনুযায়ী রাশিয়ার ১৮ থেকে ২৭ বছর বয়সি পুরুষদের ১২ মাসের জন্য সেনায় যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক। এই নির্দেশ অমান্য করলে জরিমানা বা কারাদণ্ডও হতে পারে।

প্রতীকী ছবি

ব্রাজিলের সংবিধান অনুযায়ী দেশের সমস্ত পুরুষের জন্য সেনাতে যোগ দেওয়া আবশ্যিক। সর্বনিম্ন ১২ মাসের জন্য সামরিকবাহিনীতে যুক্ত থাকতে হয় সে দেশের পুরুষদের। তবে কেউ চাইলে আট বছর পর্যন্ত নিজের ইচ্ছায় সেনায় যুক্ত থাকতে পারেন। ব্রাজিলে সাধারণত ১৮ বছর বয়স পেরোলেই যুবকদের সেনায় ভর্তি করানো হয়। বাহিনীতে যোগ দিতে অনিচ্ছুকদের ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়ারও আইন রয়েছে। তবে সেনাদলে যোগ দেওয়ার এই নিয়ম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে নারীদের।

১৯৪৯ সালের ইজরায়েলের নিরাপত্তা পরিষেবা আইন অনুযায়ী আরবের ইজরায়েলিরা ছাড়া বাকি সব ১৮ বছর বয়সি ইজরায়েলির সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক। নিরাপত্তা বাহিনীতে যোগ দিতেই হবে ইহুদি, ড্রুজ বা সার্কাসিয়ান বংশোদ্ভূত ইজরায়েলিদের। পুরুষদের কমপক্ষে দুবছর আট মাস এবং নারীদের দুবছর সেনায় যুক্ত থাকার বিধি রয়েছে সে দেশে।

আরবের ইজরায়েলি ছাড়াও বিবাহিত এবং শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থদের সেনাদলে যোগ দেওয়ার নিয়ম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। সমীক্ষা অনুযায়ী, ইজরায়েলি পুরুষদের একাংশ এই নিয়মের অবসান চান। তারা বরং স্বেচ্ছায় সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার পক্ষে।

ইরানের সংবিধান অনুযায়ী, ১৮ বছর পেরোলেই সে দেশের যুবকদের দেড় থেকে দুবছরের জন্য সেনাবাহিনীতে যোগ দিতেই হবে। তবে নারীদের জন্য নিরাপত্তা বাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক নয়। এছাড়া শারীরিক অসুস্থতা থাকলেও এই নিয়ম থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। ১৮ বছরের যুবকদের বাবার বয়স ৬০ বছরের বেশি হলে তারাও এই নিয়ম থেকে অব্যাহতি পাবেন। সেনায় যোগ দেওয়ার নিয়ম না মানলে ওই যুবক ভয়ানক সাজার মুখোমুখি হতে পারেন। সমস্ত মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি ওই যুবকদের দেশ ছেড়ে যাওয়াতেও নিষেধাজ্ঞা জারি হতে পারে।

আরো পড়ুন: শেষমেশ কী হয়েছিল লায়লা-মজনুর?

ইরান সরকার নতুন নিয়ম আনার প্রস্তাব দেয় কিছুদিন আগে। সেখানে ১০ হাজার ডলারের পরিবর্তে ৩৫ বছরের বেশি বয়সি পুরুষরা সেনায় যোগ দেওয়া থেকে ছাড় পেতে পারেন। তবে এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ানোয় এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হয়নি। বিক্ষোভকারীদের দাবি ছিল, সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে আখেরে ধনীদের সুবিধা হবে।

কিউবাতে ১৭ থেকে ২৮ বছর বয়সি পুরুষদের দুবছর দেশের সামরিকবাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক। ১৬ বছর হলেই তাদের সে দেশের সেনাদলে নাম নথিভুক্ত করতে হয়। দুবছর পরিষেবা দেওয়ার পর পুরুষরা সেনাবাহিনী ছেড়ে চলে গেলেও তাদের সেনার অংশ হিসেবেই বিবেচনা করা হয়। ৪৫ বছর বয়স হওয়া পর্যন্ত দেশের স্বার্থে যখন খুশি আবারো সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হতে পারে ওই ব্যক্তিদের। সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে অস্বীকার করলে সেই ব্যক্তির কারাদণ্ড বা জরিমানাও হতে পারে। তবে নারীদের ক্ষেত্রে নিয়মটা একটু আলাদা। নারীরা স্বেচ্ছায় দুবছরের জন্য সেনা হিসেবে যোগ দিতে পারেন। তবে যোগ দিতেই হবে এমন বাধ্যবাধকতা নেয়।
সুইজারল্যান্ডেও পুরুষদের নিরাপত্তা বাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক। সে দেশে পুরুষদের ২০ বছর বয়সের পর থেকে সেনায় যোগ দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। দুবছরের কিছু কম সময় পুরুষদের সেনাবাহিনীতে যুক্ত থাকা বাধ্যতামূলক। তবে নারীরা যোগ দিতে পারেন নিজেদের ইচ্ছায়।

পুরুষদের অতি অবশ্যই সেনাদলে যোগ দেওয়ার এই নিয়ম বদলানোর জন্য ২০১৩ সালে সুইজারল্যান্ডে গণভোট হয়। তবে ৭৩ শতাংশ মানুষ পুরুষদের প্রতিরক্ষা বাহিনীতে আবশ্যিকভাবে যোগ দেওয়ার পক্ষেই ভোট দেন। এর আগেও দুবার এই গণভোটের আয়োজন করা হয়েছিল। পুরুষদের জন্য নিয়ম তো পাল্টাইনি, উল্টে ২০২৪ সালের মধ্যে নারীদেরও সামরিকবাহিনীতে যোগদান বাধ্যতামূলক করার চিন্তাভাবনা চলছে।

প্রতীকী ছবি

তুরস্কেও ২০ থেকে ৪১ বছর বয়সি পুরুষদের নিরাপত্তা বাহিনীতে যোগদান বাধ্যতামূলক। তবে ২০১৯ সালে সে দেশের আইনসভায় একটি নতুন আইন পাশ করিয়ে সেনাবাহিনীতে পরিষেবার সময়সীমা ১২ মাস থেকে কমিয়ে ছয় মাস করা হয়েছে। তবে কেউ চাইলে এর পরেও নিজের ইচ্ছায় সেনাবাহিনীতে থাকতে পারেন। তবে কেউ সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে না চাইলে তার বিকল্পও রয়েছে। এক মাসের সামরিক প্রশিক্ষণের পর কেউ চাইলে পাঁচ হাজার ডলারের বিনিময়ে বাকি পাঁচ মাস সেনাবাহিনীতে কাজ করা এড়াতেও পারেন। তবে কেউ যদি উচ্চশিক্ষার জন্য সেনাবাহিনীতে দেরিতে যোগ দিতে চান, তা হলে তাকে সেই অনুমতি দেওয়া হয়। প্রবাসী তুর্কিরাও সরকারকে নির্দিষ্ট অর্থপ্রদান করে সেনাদলে যোগ দেওয়া থেকে অব্যাহতি পেতে পারেন।

২০১০ সালে সুইডেনে পুরুষদের আবশ্যিকভাবে সেনাদলে যোগ দেওয়ার নিয়ম বাতিল করা হলেও ২০১৭ সালে তা আবার ফিরিয়ে আনা হয়। তবে ২০১৪ সালে ক্রাইমিয়া রাশিয়ার দখলে যাওয়ার পর পরই সুইডেনে আবারো সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে চিন্তাভাবনা শুরু হয়। তবে আগে শুধু পুরুষদেরই সেনাতে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক থাকলেও ২০১৭ সালের পর পুরুষ এবং নারী উভয়ের জন্যই সেনাবাহিনীকে যোগ দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়। সেনায় আবশ্যিকভাবে যুক্ত থাকার সময়কাল ৯ থেকে ১২ মাস।

উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার দেশ এরিট্রিয়া সেনায় নিয়োগের নিয়মের জন্য কুখ্যাত। মানবাধিকার কমিশনের মতে, এই দেশের অনেক বাসিন্দা তাদের পুরো জীবন অনিচ্ছা সত্ত্বেও সামরিক বাহিনীতে কাটিয়েছেন। ২০০৩ সালে সরকারের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়, স্কুল শিক্ষা শেষ করার আগে ছেলে এবং মেয়ে উভয়ের জন্যই সামরিক প্রশিক্ষণ নেওয়া বাধ্যতামূলক।

এরিট্রিয়ার এই আইন অনুযায়ী, কমপক্ষে ১৮ মাস সেনাবাহিনীতে যুক্ত থাকতেই হবে। তবে সে দেশের অনেক বাসিন্দাকেই আজীবন সেনায় কাজ করে যেতে হয়। রিপোর্ট অনুযায়ী, এই আইনের হাত থকে বাঁচতে ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সি অনেক যুবক-যুবতীই দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান।

২০০০ সালে ইথিয়োপিয়ার সঙ্গে সীমান্তবর্তী যুদ্ধের সময় এরিট্রিয়ায় এই নিয়ম চালু করা হয়। কিন্তু ২০১৮ সালে ইথিয়োপিয়ার সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পরও এরিট্রিয়া সরকার এই আইনে কোনো বদল আনেনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/কেবি

English HighlightsREAD MORE »