এক রাজকন্যার একাকী বাস ভারতের যে রাজপ্রাসাদে 

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৬ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

এক রাজকন্যার একাকী বাস ভারতের যে রাজপ্রাসাদে 

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৫ ৬ মে ২০২১  

রাজকুমারী রাজ্যশ্রী কুমারী বর্তমানে লালগড় প্রাসাদেই বাস করছেন

রাজকুমারী রাজ্যশ্রী কুমারী বর্তমানে লালগড় প্রাসাদেই বাস করছেন

ভারতের রাজস্থানের রয়েছে হাজার হাজার বছরের ইতিহাস রয়েছে। এটি ছিল সিন্ধু সভ্যতার অন্যতম গুরুতবপূর্ণ স্থান। এখানকার ঐতিহাসিক প্রাসাদগুলোর একটি হলো ‘লালগড় প্যালেস’। ইতিহাসবিদদের মতে ১৯০২ সাল থেকে ১৯২৬ সালের মধ্যে রাজস্থানের শহর বিকানের মহারাজা গঙ্গা সিং প্রাসাদটি নির্মাণ করেন। প্রাসাদটি ইন্দো-সারেসনিক স্টাইলে নির্মিত।

বিকানেরের মহারাজা রাও গঙ্গা সিংহ প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের হয়ে অংশ নিয়েছিলেন। ব্রিটিশ রাজপরিবারেরও অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন তিনি। তার ছেলে মহারাজা রাও সাদুল সিংহের সম্মতিতে বিকানের যুক্ত হয় স্বাধীন ভারতের রাজপুতানার অংশে। পরে সেই রাজ্যের নাম হয় রাজস্থান। বিকানের শহর থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে এ প্রাসাদ ১৯০২-১৯২৬ সাল পর্যন্ত তৈরি করেছিলেন মহারাজা রাও গঙ্গা সিংহ। রাজতন্ত্র লোপ পাওয়ার আগে বিকানের রাঠৌর বংশের শেষ রাজা ছিলেন রাও কারনি সিংহ।

রাজস্থানের ঐতিহাসিক প্রাসাদগুলোর একটি হলো ‘লালগড় প্যালেস’লাল বেলেপাথরের দৃষ্টিনন্দন এ রাজবাড়ি দেখতে বরাবরই দর্শনার্থীরা ভিড় জমাতেন। এজন্য এ প্রাসাদের বড় একটি অংশ রূপান্তরিত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী রাজকীয় হোটেলে। ১০০ বছরের পুরোনো এ রাজবাড়ি আজও তার সৌন্দর্য হারায়নি। প্রাসাদটির নকশা করেছিলেন ব্রিটিশ স্থপতি স্যার স্যামুয়েল সুইটন জ্যাকব।

মহারাজা কারনি সিংহের মেয়ে রাজ্যশ্রী কুমারীমহারাজা গঙ্গা সিং (১৮৮১-১৯৪২) সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, তার পিতা মহারাজা লাল সিংয়ের স্মরণে রাজবাড়ির নামকরণ করবেন। তাই লালগড় প্যালেস হিসেবেই পরিচিতি পায় প্রাসাদটি। ১৯২০ সালে জর্জেস ক্লেমেনসৌ, কুইন মেরি, কিং জর্জ পঞ্চম, লর্ড হার্ডিং এবং লর্ড ইরভিনসহ অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিরা এ প্রাসাদে অতিথি হয়ে আসেন। লর্ড কার্জন লালগড় প্রাসাদের প্রথম উল্লেখযোগ্য অতিথি ছিলেন।

মাত্র ৭ বছর বয়সে তিনি অনূর্ধ্ব ১২ বিভাগে এয়ার রাইফেল চ্যাম্পিয়নশিপে বিজয়ী হয়েছিলেন রাজকুমারী ভারতীয়, ইউরোপীয় এবং মুঘল স্থাপত্যরীতি অনুসরণে তৈরি এ প্রাসাদের মূল স্থপতি ছিলেন ব্রিটেনের সুইন্টন জ্যাকব। বাইরে লাল পাথর খোদাই করা আর ভেতরে মার্বেলে তৈরি এ প্রাসাদ নির্মাণে খরচ হয়েছিল এক লাখেরও বেশি রুপি। ৪০০ জন অতিথি একসঙ্গে বসতে পারেন লালগড়ের এ প্রাসাদের ভোজনশালায়। বিশ্বের সর্ববৃহৎ ব্যক্তিগত বই সংগ্রহগারের মধ্যে এ প্রাসাদের পাঠাগার আছে চতুর্থ স্থানে। বাহারি বাগান এবং জাদুঘর এ প্রাসাদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

অনেক অনেক পুরস্কারও আছে তার ঝুলিতে বিকানের রাজবংশের উত্তরাধিকারী রাজকুমারী রাজ্যশ্রী কুমারী। মহারাজা কারনি সিংহের মেয়ে রাজ্যশ্রী কুমারী বর্তমানে থাকেন লালগড়ের এ প্রাসাদে। মাত্র ৭ বছর বয়সে তিনি অনূর্ধ্ব ১২ বিভাগে এয়ার রাইফেল চ্যাম্পিয়নশিপে বিজয়ী হয়েছিলেন। এরপরেও শ্যুটিংয়ে দেশ-বিদেশ থেকে একাধিক খেতাব পেয়েছেন।

স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর লন্ডন থেকে চলে আসেন শেকড়ের সন্ধানে ১৯৬৮ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে শ্যুটিংয়ে দক্ষতার স্বীকৃতিস্বরূপ অর্জুন পুরস্কারে সম্মানিত হন। শ্যুটিংয়ের প্রতি রাজ্যশ্রীর আগ্রহ তৈরি করেছিলেন তার বাবা। ১৯৬৮ সালে দিল্লিতে পড়াশোনার পর বিয়ে করে রাজ্যশ্রী চলে গিয়েছিলেন লন্ডন। তবে তার দাম্পত্য জীবন সুখের হয়নি। এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ডিভোর্সের স্মৃতি এখনো তিনি ভুলতে পারেন না। তবে বিবাহবিচ্ছেদ তাকে জীবনসংগ্রামে অনেক বেশি পরিণত করেছে বলে মনে করেন রাজ্যশ্রী।

বিকানের রাজবংশের বর্তমান উত্তরাধিকারী এই রাজকন্যা তার ছেলে সজ্জন কুমার এবং মেয়ে অনুপমা কুমারীও বিকানের রাজবংশের উত্তরাধিকারী হিসেবে গর্বিত। শিল্পকলার গুণগ্রাহী এবং প্রকৃতিপ্রেমী রাজকুমারি রাজ্যশ্রী দিনের বেশিরভাগ সময় কাটান প্রাসাদের বাগানে। রাজকুমারী বেশ কয়েকটি বইও লিখেছেন রাজস্থান, বিকানের রাজবংশ এবং ইতিহাস নিয়ে। রাজ্যশ্রী নিজ ভিটায়ই আজীবন কাটাতে চান। বর্তমানে লেখালেখি আর নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছেন বিকানের রাজবংশের রাজকন্যা 

ডেইলি বাংলাদেশ/কেএসকে