টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা চীনা যাত্রীদের করুণ পরিণতি 

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৬ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৩ ১৪২৮,   ২৩ রমজান ১৪৪২

টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা চীনা যাত্রীদের করুণ পরিণতি 

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৩৯ ১৭ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৬:৪০ ১৭ এপ্রিল ২০২১

টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা তিন যাত্রী আহ লাম, ফাং লাং ও লিং হি

টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা তিন যাত্রী আহ লাম, ফাং লাং ও লিং হি

১৯১২ সালের ১৫ এপ্রিল, রাত আনুমানিক ১১ টা ৪০ মিনিটে হিমশৈলীতে ধাক্কা খায় আরএমএস টাইটানিক নামের একটি জাহাজ। এরপরই রাত ২ টা ৩৮ মিনিট থেকে একটু একটু করে সাগরে তলিয়ে যেতে থাকে জাহাজটি। বিলাসবহুল এবং বিশ্বের সবচেয়ে বড় জাহাজটিতে সেদিন ছিল দুই হাজার ২২৪ জন যাত্রী। সেখান থেকে সেদিন বেঁচে ফিরেছিলেন মাত্র ৭১০ জন সৌভাগ্যবান ব্যক্তি।   

বিলাসবহুল জাহাজ টাইটানিক আটলান্টিক মহাসাগরে ডুবে গেল, সেদিন সাগরের হিমশীতল পানিতে জমে মৃত্যু ঘটেছিল হাজারো যাত্রীর। আর বেঁচে যাওয়া সৈভাগ্যবানদের মধ্যে ছিলেন ছয়জন চীনা নাগরিক। সেদিনের দুর্ঘটনা থেকে প্রাণে বেঁচে ফিরলেও পরবর্তীতে তাদের জীবনে কী ঘটেছিল, তা জানা যায়নি। 

বিশ্বের সবচেয়ে বড় এবং বিলাসবহুল জাহাজ আরএমএস টাইটানিক জাহাজ থেকে আগেই সরে যাওয়া একটিমাত্র লাইফবোট শুধু ফিরে এসেছিল পানিতে পড়েও বেঁচে থাকা যাত্রীদের উদ্ধার করতে। আর সেই অন্ধকারের মধ্যে উদ্ধারকারী দল খুঁজে পেয়েছিল ভাঙা দরজা ধরে ভেসে থাকা ও শীতে কাঁপতে থাকা এক চীনা নাগরিককে। আর সেই মানুষটি ছিলেন ফাং লাং। টাইটানিক দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যাওয়া ছয় চীনা নাগরিকের মধ্যে তিনিও ছিলেন একজন, যার বেঁচে যাওয়ার দৃশ্য বিখ্যাত হলিউড ব্লকবাস্টার চলচ্চিত্র 'টাইটানিক'-এ দর্শকরা দেখেছেন।  

তবে তাদের এই অলৌকিক বেঁচে যাওয়া দিয়েই ঘটনার যবনিকাপাত হয়নি। আসলে উদ্ধারের পর নিউইয়র্কের এলিস দ্বীপের অভিবাসী তদন্ত স্টেশনে এসে পৌঁছাবার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই তাদের দেশ থেকে বের করে দেয়া হয় অবৈধ অভিবাসী হিসেবে। এর কারণ ছিল চীনের একটি বিতর্কিত আইন, যার ফলে যুক্তরাষ্ট্রে চীনা নাগরিকদের প্রবেশে একটি বাধা তৈরি হয়েছিল। সেই থেকে আজ অবধি সেই ৬ চীনা নাগরিকের নামই যেন মুছে গেছে ইতিহাসের পাতা থেকে।  এছাড়াও আরো একজনের কথা জানা যায়, তিনি হলেন মাসাবুমি হোসোনু। তিনি অবশ্য কাপুরুষতার তকমা পেয়েছিলেন নিজের দেশ থেকে। যে কারণে বহিষ্কারও হন নিজের দেশ কোরিয়া থেকে। 

টাইটানিক জাহাজ নিয়ে হলিউডে নির্মিত হয় বিখ্যাত সিনেমা টাইটানিক সম্প্রতি একটি চীনা প্রামাণ্যচিত্রের প্রদর্শনীতে টাইটানিক ট্র্যাজেডির ১০৯ বছর পর সেই ৬ নাগরিকের পরিচয় ও জীবনবৃত্তান্ত প্রকাশ পেয়েছে। 'দ্য সিক্স' নামের এই প্রামাণ্যচিত্র দ্বারাই বেরিয়ে এসেছে টাইটানিকে পেছনের এক অজানা গল্প, যে গল্প আগাগোড়াই জাতিগত বৈষম্য ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন-বিরোধী নীতি দিয়ে মোড়া; যা একইসঙ্গে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে এশিয়া বিরোধী মনোভাবেরও পরিচয় বহন করে।

টাইটানিক থেকে বেঁচে যাওয়া সেই ছয় নাগরিকের নাম ছিল; লি বিং, ফাং লাং, চ্যাং চিপ, আহ লাম, চুং ফু এবং লিং হি। ধারণা করা হচ্ছে, তাদের সকলেই ছিলেন ক্যারিবীয় অঞ্চলের দিকে কাজের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা নাবিক। 'দ্য সিক্স' এর পরিচালক, ব্রিটিশ চলচ্চিত্র নির্মাতা আর্থার জোনস বলেন, "একসঙ্গে একদল মানুষ থাকার পরেও এটি খুব অদ্ভুত যে তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।"

বেঁচে ফেরা চীনা নাগরিকদের নাম উদ্ধার করা হয়েছে জাহাজের যাত্রী তালিকা ও টাইটানিক সম্পর্কিত বিস্তারিত সংবাদ-আর্টিকেল থেকে। তবে টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা অন্যান্য যাত্রীরা গণমাধ্যমে ভূয়সী প্রশংসা পেলেও ২০ শতকের গোড়ার দিকে পশ্চিমে চীনাবিদ্বেষের কারণে এই চীনা নাগরিকদের সেখানে উহ্য রাখা হয় বলে মনে করছেন ঐতিহাসিক ও গবেষকরা।

চীনা সেই নাগরিকদের তথ্য পাওয়া যায় টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা যাত্রীদের তালিকায় জাহাজ ডুবে যাওয়ার কয়েকদিন পরেই লিখিত এক প্রতিবেদনে 'দ্য ব্রুকলিন ডেইলি এজ' সেই চীনা নাগরিকদের 'জীব' বলে উল্লেখ করে লেখে "তারা বিপদের আশঙ্কা দেখেই সবার আগে নৌকায় উঠে পড়েছিল এবং বসার সিটের নিচে গা ঢাকা দিয়ে লুকিয়েছিল।"

তবে সাম্প্রতিক প্রামাণ্যচিত্রের গবেষক দল দাবি করেন যে, এমন তথ্য একেবারেই ভিত্তিহীন। তারা টাইটানিকের লাইফবোটের একটি রেপ্লিকা বানিয়ে দেখান যে। সেই নৌকার আসনের মধ্যে লুকিয়ে থাকা অসম্ভব এবং তা কারো না কারো চোখে পড়বেই। জোনসের ভাষ্যে, "আমরা আজও বর্ণ বৈষম্যের যে চিত্র দেখি- তখনো তেমনই ছিল, অভিবাসীরাই সব সময় বলির পাঁঠা হয়।" শুধু তাই নয়, সেসময়ের অন্যান্য গণমাধ্যম অভিযোগ করে, চীনা নাগরিকেরা নারীদের পোশাক পরে নৌকায় বসে ছিলেন।

টাইটানিক ঐতিহাসিক টিম মালটিন জানান, চীনারা নারীদের সাজে ছিল এমন কোনো প্রমাণ আজ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এগুলো সবই গণমাধ্যমের বিদ্বেষী প্রচার ও জনসাধারণের বানানো বুলি। এ ধরনের গুজব ওঠার পেছনের কারণ হতে পারে যে, তখনকার দিনে মানুষ ভাবতো নারী ও শিশুদের যেকোনো দুর্ঘটনায় আগে গুরুত্ব দেয়া উচিত। এর ফলে টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরা পুরুষদের নামের সঙ্গে কিছুটা উষ্মা জড়িয়েই ছিল। 

মাসাবুনি হোসোনু টাইটানিক থেকে বেঁচে ফিরে পেয়েছিলেন কাপুরুষের তকমা ঐতিহাসিক টিম মালটিনের মতে, চীনা নাগরিকরা আগে অন্যদের সাহায্য করেছিলেন নিরাপদে লাইফবোটে উঠতে, বিশেষ করে ফাং লাং একাজে সক্রিয় ছিলেন। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরিয়ে দেয়ার পর ছয় চীনা নাগরিককে কিউবা পাঠানো হয়। সেখান থেকে শীঘ্রই তারা যুক্তরাজ্যে যাবার উপায় খুঁজে পান, কারণ তখন বহু ব্রিটিশ নাবিক প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যোগ দেয়ায় নাবিক সংকট চলছিল।

দুর্যোগময় সেই রাতের পর থেকেই চ্যাং চিপ ক্রমশ অসুস্থ হয়ে পড়ছিলেন এবং অবশেষে তিনি ১৯১৪ সালে নিউমোনিয়ায় মারা যান। তাকে লন্ডনের এক সমাধিস্থলে কবর দেয়া হয়, তবে কবরে কোনো চিহ্নই রাখা হয়নি। বাকি ৫ জন ১৯২০ সাল পর্যন্ত একসঙ্গেই ব্রিটেনে কাজ করেন। যুদ্ধ পরবর্তী সমস্যা ও অভিবাসী বিরোধিতা তখন চরমে ছিল। খুব কম সংখ্যক চীনা পুরুষ তখন ব্রিটিশ নারীদের বিয়ে করেছিলেন, যদিও অভিবাসী বিরোধী আইন শীঘ্রই তাদের আলাদা করে দেয় এবং বিনা নোটিশে যুক্তরাজ্য ছাড়তে বাধ্য করে। সেই সঙ্গে হারিয়ে যায় প্রিয়জনও।

টাইটানিকে সেদিন যাত্রী ছিল ২ হাজার ২২৪ জন, যার মধ্যে বেঁচে ফিরেছিলেন মাত্র ৭১০ জন যাত্রী এরপর আহ লাম চলে আসেন হংকং-এ, অন্যদিকে লিং হি একটা স্টিমবোটে চড়ে ভারতের কলকাতায় রওনা দেন। লি বিং কানাডায় অভিবাসিত হন, আর ফাং লাং কয়েক বছর ব্রিটেন-হংকং ঘুরে শেষপর্যন্ত নাগরিক হন সেই আমেরিকার, যারা তাকে একসময় তাড়িয়ে দিয়েছিল।  

টাইটানিক ডুবে যাওয়ার অর্ধশতক পরে ফাং লাং এর ছেলে টম ফং এর জন্ম হয় উইসকনসিনের মিলওয়াকিতে। কয়েক দশক ধরে টম তার বাবার জীবনের সেই অভিজ্ঞতার কিছুই জানতেন না। ১৯৮৫ সালে ৯০ বছর বয়সে ফাং মারা যান। তার মৃত্যুরও ২০ বছর পর টম ফং প্রথম এক আত্মীয়ের কাছে জানতে পারেন, তার বাবা ছিলেন বহুল আলোচিত সেই টাইটানিক থেকে বেঁচে যাওয়া এক যাত্রী। টম ফং এর ধারণা, তার বাবা সেদিনের বিভীষিকা থেকে পাওয়া মিশ্র অনুভূতির ফলেই কাউকে কিছু বলতে চাইতেন না।

'দ্য সিক্স' এর গবেষক দল যখন টাইটানিক থেকে বেঁচে ফেরাদের সম্পর্কে খোঁজখবর শুরু করে, অনেকের পরিবারই এক শতক আগে তাদের প্রিয়জনের বাজে অভিজ্ঞতাবশত সেদিনের গল্প বলতে অনাগ্রহ দেখান। উইসকনসিনে বেড়ে ওঠা ফং তার বাবাকে বহুবার দেখেছেন বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই করতে। একদিন তাকে বিজাতীয় নামে ডাকায় এক ব্যক্তিকে ঘুষিও মেরেছিলেন তার বাবা। 

সূত্র: বিবিসি 

ডেইলি বাংলাদেশ/কেএসকে