টাকার নোটের সচিত্র ইতিহাস

ঢাকা, সোমবার   ২৭ জুন ২০২২,   ১৩ আষাঢ় ১৪২৯,   ২৮ জ্বিলকদ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

২য় পর্ব

টাকার নোটের সচিত্র ইতিহাস

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:০৯ ৩ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৪:১০ ৩ নভেম্বর ২০২০

ছবি: দেশের প্রচলিত যত কাগজের নোট

ছবি: দেশের প্রচলিত যত কাগজের নোট

টাকা হল বাংলাদেশের মুদ্রা। বাংলাদেশের জন্ম ১৯৭১ সালে হলেও এর শুরুটা ছিল ১৯৪৭ সালে পূর্ব পাকিস্তান হিসেবে। তখন দেশে পাকিস্তান রুপির প্রচলন ছিল, যেটিকে কাগজে–কলমে টাকাও বলা হতো।

মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে বাঙালি জাতীয়তাবাদীরা বেসরকারিভাবে পাকিস্তানি টাকার একপাশে 'বাংলা দেশ' এবং অপর পাশে 'Bangla Desh'লেখা রাবার স্ট্যাম্প ব্যবহার করতেন।  

১৯৭১ সালের ৮ জুন পাকিস্তান সরকার এই রাবার স্ট্যাম্পযুক্ত টাকাকে অবৈধ এবং মূল্যহীন ঘোষণা করে। এরপর ১৯৭৩ সালের ৩ মার্চ পর্যন্ত অবশ্য এই টাকা সারাদেশে চালুছিল। বাংলাদেশ ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর স্বাধীনতা লাভের পর নতুন মুদ্রা প্রচলনের ঘোষণা দেয়া হয়।

সে সময় পাকিস্তানি ১, ৫ এবং ১০ রূপি ব্যবহৃত হয় যা পরের দিকে সরকার বাতিল করে দেয়। পরবর্তীতে ১৯৭২ সালের ৪ঠা মার্চ প্রথম নোট চালু হয়। প্রথমে ১, ৫, ১০ এবং ১০০ টাকার নোট ছাপা হয়। 

আরো পড়ুন: টাকার নোটের সচিত্র ইতিহাস ১ম পর্ব

তবে চলুন বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত যতগুলো নোট এবং কয়েন বাজারে ছাড়া হয়েছে তার সচিত্র ইতিহাস তুলে ধরা হল। আজ থাকছে দ্বিতীয় পর্ব। এর আগের পর্বে আপনার জানিয়েছিলাম ১, ২ এবং ৫ টাকার নোট এবং কয়েনের ইতিহাস। চলুন আজ আরো কয়েকটি কাগজের এবং কয়েনের পরিবর্তন এবং সংরক্ষণের ইতিহাস জানব-

দশ টাকা

১৯৭২ সালের ৪ঠা মার্চ প্রথম ১০ টাকার নোট ইস্যু করা হয়। এর সামনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবি। তবে বর্তমানে এই নোটটি অপ্রচলিত।

১৯৭২ সালের ৪ঠা মার্চ প্রথম ১০ টাকার এই নোটটি ইস্যু করা হয়পরবর্তীতে ১৯৭২ সালের ২রা জুন এবং ১৯৭৩ সালের ১৫ই অক্টোবর  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবি ও পেছনে নদীমার্তৃক এলাকার চিত্র যোগ করা হয়েছে। তবে এই নোটটি এখন অপ্রচলিত।

এই নোটটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবি ও পেছনে নদীমার্তৃক এলাকার চিত্র১৯৭৩ সালের ১৫ অক্টোবর ইস্যুকৃত দশ টাকার নোটের সামনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবি ও পেছনে কিষানের ধান কাটার ছবি। এই নোটটিও বর্তমানে অপ্রচলিত।

এই নোটটির পেছন পাশে কিষানের ধান কাটার ছবিপরবর্তীতে ১৯৭৮ সালের ৩রা আগস্ট এবং ১৯৮২ সালের ৩রা সেপ্টেম্বর “আতিয়া জামে মসজিদ”এর ছবি সম্বলিত ভিন্ন দুটি নোট ইস্যু হয়।

আতিয়া জামে মসজিদ”এর ছবি সম্বলিত দুটি নোট

আতিয়া মসজিদ সম্বলিত আরেকটি নোট ১৯৯৭ সালের ১১ই ডিসেম্বর “লালবাগ কেল্লা মসজিদ”-এর ছবি সম্বলিত নোট ইস্যু হয়।

 লালবাগ কেল্লা মসজিদ-এর ছবি সম্বলিত নোট

২০০০ সালের ১৪ই ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়া থেকে ১০ টাকার পলিমার নোট তৈরী করে আনা হয়। যা বাংলাদেশের জন্য ব্যবহারের অনুপযোগী।

অস্ট্রেলিয়া থেকে ১০ টাকার পলিমার নোট তৈরী করে আনা হয়এরপর ২০০২ সালের ৭ই জানুয়ারী ১০ টাকার আরেকটি নোট ইস্যু হয়। সর্বশেষ ২০০৬ সালের ২১ই সেপ্টেম্বর নিরাপত্তা উপাদান বাড়িয়ে পুনরায় আগের নোটটি ইস্যু হয়।

১০ টাকার নোটের শেষ সংস্করণ

বিশ টাকা

১৯৭৯ সালের ২০ই আগস্ট প্রথম ২০ টাকার নোট ইস্যু হয়। পরবর্তীতে হলগ্রাফিক নিরাপত্তা সংযুক্ত করে ২০০২ সালের ১৩ ই জুলাই পুনরায় আগের নোটটি ইস্যু হয়। 

বিশ টাকার নোটপঞ্চাশ টাকা

১৯৭৬ সালের ১লা মার্চ প্রথম ৫০ টাকার নোট ইস্যু হয়।

৫০ টাকার প্রথম ইস্যু করা নোট ১৯৭৯ সালের ৪ঠা “তারা মসজিদ”-এর পরিবর্তে “ষাট গুম্বুজ মসজিদ”-এর ছবি সম্বলিত নোট ইস্যু হয়। 

ষাট গুম্বুজ মসজিদ-এর ছবি সম্বলিত নোট১৯৮৭ সালের ২৪ই আগস্ট প্রথমবারের মত “স্মৃতিসৌধ”-এর ছবি সম্বলিত নোট ইস্যু হয়।

স্মৃতিসৌধ-এর ছবি সম্বলিত নোট এরপর ১৯৯৯ সালের ২২ই আগস্ট এবং ঈষৎ পরিবর্তন করে ২০০৩ সালের ১২ই মে একই নোট ইস্যু হয়।

৫০ টাকার শেষ ইস্যুকৃত নোট একশ টাকা

১৯৭২ সালের ৪ঠা মার্চ প্রথম ১০০ টাকার নোট ইস্যু হয়।

প্রথম ইস্যু করা ১০০ টাকার নোট ১৯৭২ সালের ১লা সেপ্টেম্বর “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান” – এর ছবি সম্বলিত এবং ১৯৭৬ সালের ১লা মার্চ “তারা মসজিদ”-এর ছবি সম্বলিত দু’টি একই ডিজাইনের নোট ইস্যু হয়। 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান-এর ছবি সম্বলিত ১০০ টাকার নোট১৯৭৭ সালের ১৫ই ডিসেম্বর সম্পূর্ণ নতুন ডিজাইনের ১০০ টাকার নোট ইস্যু হয়।

এই নোটটি ১৯৭৭ সালের ১৫ই ডিসেম্বরে ইস্যু করা হয়  ২০০১ সালের ১৫ই মার্চ optical variable ink (ovi) ব্যবহার করে নোট ইস্যু হয়।

optical variable ink (ovi) ব্যবহার করে নোট ইস্যু হয়২০০২ সালের ৫ই জুন “স্মৃতিসৌধ”-এর ছবি সম্বলিত নোট ইস্যু হয়। 

শেষ ইস্যুকৃত ১০০ টাকার নোট  ২০০৫ সালের ২৮শে জুলাই পূর্বের ১০০টাকার “100” শব্দটিকে সোনালী রঙে পরিবর্তন করা হয়।

২০০৫ সালে নোটের 100” শব্দটিকে সোনালী রঙে পরিবর্তন করা হয়দেশের আরও নোটের সচিত্র ইতিহাস জানতে ডেইলি বাংলাদেশের সঙ্গেই থাকুন। পরবর্তী পর্বগুলোতে থাকছে দেশের বাকি নোটগুলোর ইতিহাস।   

ডেইলি বাংলাদেশ/কেএসকে

English HighlightsREAD MORE »