মাটির নিচে আলো ঝলমলে অবিশ্বাস্য এক গুহা

ঢাকা, রোববার   ০১ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ১৭ ১৪২৮,   ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

মাটির নিচে আলো ঝলমলে অবিশ্বাস্য এক গুহা

সাতরঙ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪৩ ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৩:৫৬ ৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ছবি: আলো ঝলমলে গুহা

ছবি: আলো ঝলমলে গুহা

পাতালপুরীর নাম শুনলেই আমাদের চোখে ভেসে ওঠে অন্ধকার প্রোকোষ্ঠ এক স্থানের কথা। যেখানে নানা পোকা-মাকড়সহ ভয়ংকর প্রাণীর অস্তিত্ব থাকাটাই স্বাভাবিক। তবে কখনো কি ভেবে দেখেছেন? এমন কোনো গুহা রয়েছে যেখানে আলো ঝলমল করছে, তাও আবার প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন হয় এসব আলো।

জ্বলছে কীটনিউজিল্যান্ডের নর্থ আইল্যান্ডে এক ঝলমলে পাতালপুরীর অবস্থান। গুহাটির নাম ওয়েটোমো গোওয়ার্ম গুহা। ছোট ছোট আলোকবিন্দুর এই ছায়াপথ হাজারো জীবন্ত প্রাণী দ্বারা তৈরি। এই গুহায় থাকা প্রতিটি প্রাণী অন্ধকারের সঙ্গে পুরোপুরি নিজেদের মানিয়ে নিয়েছে। গুহার ছাদের দিকে তাকালেই মনে হবে বিশালাকার ঝাড়বাতি আলো ছড়াচ্ছে।

গুহার মধ্যে পানিও রয়েছেওয়াটোমো গুহায় একটি প্রাণী অন্ধকারকে নিজের সুবিধায় পরিণত করেছে। গুহায় হাজারো সিলিকনের সুতা ছাদ থেকে ঝুলানো রয়েছে। এগুলো যেমন সুন্দর তেমনি ভয়ংকর। সুতাগুলো তৈরি করে গুহায় বাস করা ভাস কীট (গ্লো ওর্ম)। সিল্কের এসব সুতা পোকাদের পাতা ফাঁদ।

ভাস কীটের সিল্কের সুতাভাস কীটের মুখের গ্রন্থি থেকে এই সিল্ক উৎপন্ন হয়। সুতাগুলোর অভ্যন্তরীণ পকেটে জমানো থাকে আঠালো মিউকাস। প্রতিটি পোকাই কয়েক ডজন সুতা তৈরি করে। ফাঁদ তৈরি হওয়ার পর শিকারকে আকৃষ্ট করার কাজ শুরু হয়। 

ভাস কীটএদের লেজের বিশেষ ক্যাপসুলে রাসায়নিক বিক্রিওয়ায় এক ভুতুড়ে নীল আলো তেরি হয়। এই আলো পতঙ্গদের ব্যাপকভাবে প্রলুব্ধ করে। আলোক উৎসের দিবে যেকোনো পতঙ্গ এগিয়ে গেলেই তারা সিল্কের সুতায় আটকে যায়। এই ফাঁদে আটকা পড়লে কোনো পতঙ্গই আর ছাড়া পায় না।

গুহার মধ্যে সবসময় এভাবেই আলো ঝলমল করেভাস কীট সুতা টেনে শিকারকে উপরে তুলে নেয় এবং জীবন্ত অবস্থাতেই ভক্ষণ করা শুরু করে। এই পোকাগুলো গুহায় বসবাসের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জকে পরাস্ত করেছে। তারা এভাবেই নির্ভরযোগ্য এবং নিয়মিত খাদ্যের যোগান খুঁজে নেয়। গুহা পৃথিবীর সবচেয়ে বিষ্ময়কর স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম। তবে গুহায় বাস করা প্রাণীরা আরো বেশি বিষ্ময়কর। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস