মাছ-মাংসের দাম অপরিবর্তিত, বেড়েছে সবজি 
15-august

ঢাকা, রোববার   ১৪ আগস্ট ২০২২,   ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯,   ১৫ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

মাছ-মাংসের দাম অপরিবর্তিত, বেড়েছে সবজি 

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৪৪ ৫ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১১:৪৯ ৫ আগস্ট ২০২২

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে কাঁচামরিচ ও সবজির দাম বেড়েছে। এছাড়া মাছ, মাংসসহ অন্যান্য পণ্যের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর মিরপুর কালশী বাজার, মালিবাগ বাজার, রামপুরা বাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে এ তথ্য জানা গেছে।  

এসব বাজারে লম্বা বেগুন ৯০ টাকা, গোল বেগুন ৯০ থেকে ১০০ টাকা, টমেটো ১২০ থেকে ১৩০ টাকা, করলা ৭০ থেকে ৯০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ টাকা, কচুর লতি ৮০ টাকা, পেঁপে ৫০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, ধুন্দল ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া চাল কুমড়া প্রতিপিস ৫০ টাকা ও আকারভেদে প্রতিপিস লাউ ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে প্রতিকেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৫০ টাকায়। এছাড়া কাঁচা কলার হালি ৪০ টাকা, লেবুর হালি ১৫ থেকে ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শুকনো মরিচের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকায়।  

মিরপুর কালশী বাজারের সবজি বিক্রেতা সজল মিয়া বলেন, সবজির দাম বেড়েছে। সরবরাহ কম থাকায় দাম বেড়েছে কাঁচামরিচ ও সবজির। সরবরাহ বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই কমে যাবে সবজির দাম।  

এদিকে বাজারে প্রতিকেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকায়। পেঁয়াজের দাম কমেছে। প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। আর একটু ভালো মানের পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকায়। এসব বাজারে প্রতিকেজি দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, চায়না রসুন ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। এছাড়া আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়।  

প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮৫ টাকায়। এছাড়া প্যাকেট চিনির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। এসব বাজারে দেশি মসুরের ডাল কেজি ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা, ইন্ডিয়ান মসুরের ডাল ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  

প্যাকেট আটার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা, খোলা আটার কেজি ৫০ টাকা। এছাড়া ভোজ্যতেল বিক্রি হচ্ছে ১৯০ টাকায়।  

এসব বাজারে লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, হাঁসের ডিমের ডজন ১৯০ থেকে ১৯৫ টাকা ও দেশি মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৯০ থেকে ২০০ টাকায়।  

বাজারে গত সপ্তাহের দরেই গরুর মাংসের কেজি ৭০০ টাকা ও খাসির মাংস ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এসব বাজারে ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা, সোনালি মুরগি ২৫০ থেকে ২৬০ টাকা ও লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকায়।

কারওয়ান বাজারের মুরগি বিক্রেতা সোহেল মিয়া বলেন, বাজারে মুরগির দাম তেমন বাড়েনি। তবে শুক্রবার হওয়ায় চাহিদা কিছুটা বেড়েছে।

ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি ১৬০-১৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৫০-১৫৫ টাকা। আর প্রতি কেজি পাকিস্তানি কক বা সোনালি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৮০-৩০০ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ২৬০-২৮০ টাকা।

ঈদের পর বাজারে মাছের দামে তেমন পরিবর্তন আসেনি। রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০-৪৫০ টাকায়। ১৬০-১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি তেলাপিয়া, পাঙাশ। শিং মাছের কেজি ৩০০-৪৬০ টাকা। শল মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০০-৬০০ টাকায়। কৈ মাছ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে ২০০-২৫০ টাকা। পাবদা মাছের কেজি ৩০০-৪৫০ টাকা।

এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে ইলিশের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এক কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১২০০-১৩০০ টাকায়। ৭০০-৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি ৭০০-৮০০ টাকা। আর ৪০০-৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি ৪৫০-৫০০ টাকা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর

English HighlightsREAD MORE »