‘হিরো আলম’ গেলো ৪ লাখ টাকায়, লোকসানে মাথায় হাত খামারির

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১৩ ১৪২৮,   ১৯ সফর ১৪৪৩

‘হিরো আলম’ গেলো ৪ লাখ টাকায়, লোকসানে মাথায় হাত খামারির

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৩৯ ২৪ জুলাই ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ঈদ মানেই আনন্দ। আর কোরবানি ঈদে বাড়তি আনন্দ যোগ করে বিভিন্ন হাটে উঠা বিভিন্ন নামের গরু। ঠিক তেমনি এবারের কোরবানি ঈদে রাজধানরি গাবতলী হাটের আকর্ষণ ছিলো ৩১ মণ ওজনের ষাঁড়। আর এটির নাম রাখা হয় ‘হিরো আলম’। শুরুতে খামারি এর দাম হেঁকেছিলেন ১২ লাখ টাকা। কিন্তু ঈদের আগের দিন এটি বিক্রি করা হয় ৪ লাখ টাকায়। 

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার ফাজিলহাটী ইউনিয়নের বটতলা গ্রামের প্রবাসী কামরুজ্জামানের স্ত্রী জয়নব বেগমের খামারের গরু ছিল এটি। গত ২০ জুলাই পুরান ঢাকার একটি এতিমখানা কর্তৃপক্ষ ষাঁড়টিকে কেনে। চার বছর বয়সের এই ষাঁড়টি ছিল সাড়ে ৮ ফিট লম্বা ও ৫ ফিট ৭ ইঞ্চি উচ্চতা।

খামারি জয়নব বেগম বলেন, হিরো আলমকে গাবতলীর হাটে তোলা হয়েছিল। হাটে ছয়দিন ক্রেতার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে। কেউ কাঙ্ক্ষিত দাম বলছিল না। ছয়দিন পর পুরান ঢাকার একটি এতিমখানা কর্তৃপক্ষের কাছে ষাঁড়টিকে চার লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়।

তিনি আরো বলেন, ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকায় কেনা ষাঁড়টিকে দীর্ঘদিন লালন-পালন করতে সব মিলিয়ে প্রায় পাঁচ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। আমরা ষাঁড়টি বিক্রি করে কাঙ্ক্ষিত দাম পাইনি। আমার প্রায় এক লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। এই লোকসান আমি কি দিয়ে পোষাবো সেটাই এখন বুঝতে পারছি না।

প্রতি বছরের মতো এবারও কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য তিনটি গরু প্রস্তুত করেন জয়নব বেগম। তিনি গত বছরও ৩৫ মণ ওজনের ‘সোনা বাবু’ নামের প্রায় ৩৫ মণ একটি ষাঁড় বিক্রি করেছিলেন তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস