রাজধানীতে কোয়ার্টারে নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৩ ১৪২৮,   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

রাজধানীতে কোয়ার্টারে নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৩৮ ১২ জুন ২০২১   আপডেট: ২১:৪৩ ১২ জুন ২০২১

স্বামী মিল্লাতের সঙ্গে নুসরাত

স্বামী মিল্লাতের সঙ্গে নুসরাত

রাজধানীর আগারগাঁয়ে সংসদ সচিবালয় কোয়ার্টার থেকে নুসরাত জাহান নামে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনার পর নুসরাতের স্বামী পলাতক রয়েছেন। 

শনিবার বিকেলে বাসার দরজা ভেঙে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এর আগে জাতীয় নম্বর ৩৩৩-তে প্রতিবেশীরা বিষয়টি পুলিশকে অবগত করেন। মরদেহ উদ্ধারের পরই সেখানে প্রতিবেশীদের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

মৃত নুসরাতের স্বামীর নাম মামুন মিল্লাত। তিনি পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয়ে বি-২ নম্বর কোয়ার্টারে সাবলেটে নুসরাতকে নিয়ে বসবাস করছিলেন।

পুলিশ জানায়, নুসরাত পলাতক মামুন মিল্লাতকে বিয়ের পর ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হন। তার বাড়ি খাগড়াছড়ি জেলায়। 

প্রতিবেশীদের উদ্ধৃত করে পুলিশ জানায়, বেলা ১১টার পর মামুন মিল্লাত বাসা থেকে বাইরে চলে যান। এর ঘণ্টা দেড়েক পর প্রতিবেশীরা ডাকাডাকি করে নুসরাতের কোনো সাড়া পাননি। সন্দেহ হলে এক প্রতিবেশী ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে আগারগাঁও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসার দরজা ভেঙে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না প্যাঁচানো অবস্থায় নুসরাতকে দেখা যায়। পরে মরদেহ নামিয়ে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়।

স্বজনরা পুলিশকে জানান, ২০১৯ সালে মামুন মিল্লাত নামে ওই যুবককে বিয়ে করেন নুসরাত। ওই সময় তিনি নিজেকে ৩৮তম বিসিএসের পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়েছিলেন। নুসরাত বিয়ের পর জানতে পারেন, মামুন পুলিশ কর্মকর্তা নন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায় প্রতিদিনই ঝগড়া হতো।

প্রতিবেশীদের ভাষ্য, শনিবার সকালেও নুসরাত ও তার স্বামীর ঝগড়া শুনেছেন তারা। স্বামী-স্ত্রী প্রায় দিনই ঝগড়া করতেন। গত তিন মাস ধরে ওই দুইজন সাবলেট ভাড়া নিয়ে থাকছিলেন।

শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জানে আলম মুন্সী জানান, কিছু কাগজ যাচাই করে ওই নারীর পরিচয় মিলেছে। খাগড়াছড়িতে তার বাবাসহ স্বজনদের খবর দেয়া হয়েছে। তারা ঢাকায় এলে বিস্তারিত তথ্য মিলবে। এ ঘটনায় মামওলা হবে। নুসরাতের মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে রয়েছে।

পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার মো. শহীদুল্লাহ জানান, পলাতক মামুন মিল্লাত পুলিশের কেউ নন। তিনি প্রতারক বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

তিনি আরো জানান, মামুন মিল্লাতের প্ররোচনায় নুসরা আত্মহত্যা করতে পারেন। তবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ও তদন্তের পর বিষয়টি পরিষ্কার হবে। এছাড়া অভিযুক্ত ধরতে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ