স্বাস্থ্যবিধি না মানলে দোকানপাট-শপিংমল বন্ধ: মেয়র আতিক

ঢাকা, বুধবার   ২৩ জুন ২০২১,   আষাঢ় ১০ ১৪২৮,   ১১ জ্বিলকদ ১৪৪২

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে দোকানপাট-শপিংমল বন্ধ: মেয়র আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:১১ ৭ মে ২০২১  

রাজধানীর উত্তরায় পথশিশু, হতদরিদ্র, রিকশাচালকদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন  ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

রাজধানীর উত্তরায় পথশিশু, হতদরিদ্র, রিকশাচালকদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

করোনাভাইরাস রোধকল্পে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সংশ্লিষ্ট দোকানপাট ও শপিংমল বন্ধ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

শুক্রবার রাজধানীর উত্তরায় পথশিশু, হতদরিদ্র, রিকশাচালকদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণকাল তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দোকানপাট ও শপিংমলগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মানতে হবে, অন্যথায় কঠোর আইনি ব্যবস্থার সম্মুখিন হতে হবে। এমনকি স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সংশ্লিষ্ট দোকানপাট ও শপিংমল বন্ধ করে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সরকারি নিষেধাজ্ঞা ও লকডাউন বাস্তবায়নে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

মেয়র বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে পবিত্র রমজানে খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ আমার পক্ষ থেকে একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস মাত্র।

মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, আজ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘বিডি ক্লিন’র মাধ্যমে ডিএনসিসির ৬, ৭, ১৫, ১৭, ১৯, ২০ ও ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিটির জন্য ৪০০ প্যাকেট করে মোট ২ হাজার ৮০০ প্যাকেট ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হলো। আগামীকাল থেকে প্রতিদিন ৯টি ওয়ার্ডের প্রতিটির জন্য ৪০০ প্যাকেট করে মোট ৩ হাজার ৬০০ প্যাকেট ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হবে। পর্যায়ক্রমে ডিএনসিসির সবগুলো ওয়ার্ডেই ইফতার সামগ্রী বিতরণ হবে।

খাদ্যসামগ্রী বিতরণে কাউন্সিলরদের টাকা বরাদ্দের ব্যাপারে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, করোনাকালে দুস্থ ও অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণের জন্য সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনের ৭২ জন কাউন্সিলরের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ওয়ার্ড প্রতি ৫০০ জন অসহায়-হতদরিদ্র মানুষকে শাড়ি ও লুঙ্গি বিতরণের জন্য ৭২ জন কাউন্সিলরের প্রত্যেককে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ