পুলিশের ফেসবুক পেজে অভিযোগ, সাবেক স্বামী গ্রেফতার

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ৩০ ১৪২৭,   ২৯ শা'বান ১৪৪২

পুলিশের ফেসবুক পেজে অভিযোগ, সাবেক স্বামী গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:২৯ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৯:৫৬ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আতিকুল ইসলাম বাবু

আতিকুল ইসলাম বাবু

এক নারীকে নানাভাবে হয়রানি ও হুমকির অভিযোগে তার সাবেক স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত ৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং পরিচালিত বাংলাদেশ পুলিশের ফেসবুক পেজের ইনবক্সে পাওয়া এক অভিযোগের ভিত্তিতে ২১ ফেব্রুয়ারি রমনা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

সোমবার এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পিআর) মো. সোহেল রানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস নোটে এই তথ্য জানানো হয়।

গ্রেফতার আতিকুল ইসলাম বাবু একটি মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী। তিনি দীর্ঘদিন বিদেশে অবস্থান করে সম্প্রতি দেশে ফিরেছেন।

জানা যায়, ৯ ফেব্রুয়ারি তারিখে এক ভদ্রলোক পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং পরিচালিত বাংলাদেশ পুলিশের ফেসবুক পেজের ইনবক্সে জানান, এক ভদ্রমহিলাকে তার প্রাক্তন স্বামী আতিকুল ইসলাম বাবু নানাভাবে হয়রানি করছে। বিভিন্ন সময় তাকে নানাভাবে হুমকি দিয়ে তার স্বাভাবিক জীবনযাপনকে বাধাগ্রস্থ করছে।

উক্ত নারী অত্যন্ত শঙ্কিত ও বিপর্যস্ত জীবন যাপন করছেন। এ সকল বিষয় তিনি কারো সাথে শেয়ার করতেও লজ্জিত ও শঙ্কা বোধ করছেন। সর্বশেষ গত ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ খ্রিঃ তারিখে ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে ভদ্রমহিলাকে অত্যন্ত অশ্লীল গালাগাল, হুমকি ও হয়রানির প্রমানস্বরুপ একটি অডিও টেপ তথ্যদাতা উক্ত ভদ্রলোক মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং-এ প্রেরণ করেন।

মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং উক্ত ভদ্র মহিলার সাথে যোগাযোগ করে জানতে পারে, প্রশাসন ও সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ রয়েছে এমন ভয় দেখিয়ে তার প্রাক্তন স্বামী দীর্ঘদিন তাকে হয়রানি করে আসছিল। বর্তমানে, আর কোনোভাবেই তিনি সহ্য করতে পারছেন না। তিনি পুলিশের পরামর্শ ও সহায়তা চান।

এর পরিপ্রেক্ষিতে, মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং তাৎক্ষনিকভাবে ওসি রমনাকে এ বিষয়ে অবগত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশনা প্রদান করে।

ওসি রমনা মো. মনিরুল ইসলাম, পিপিএম তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি আমলে নিয়ে অভিযুক্তকে আইনের আওতায় আনতে উদ্যোগ গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে, উন্নত তথ্যপ্রযুক্তি সেবার প্রয়োজন হওয়ায় ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সহায়তা নেয়া হয়।

এডিসি জনাব মো. আশরাফুল্লাহ এর নেতৃত্বে ওয়েব বেইজড ক্রাইম ইনভেস্টিগেশনের একটি টিমের  সার্বিক সহযোগিতায় উল্লিখিত আসামীকে ২১ ফেব্রুয়ারি রমনা থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএএম/ইকেডি