ডিএসসিসি’র প্রতিটি ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ হবে: মেয়র

ঢাকা, শুক্রবার   ০৫ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২১ ১৪২৭,   ২০ রজব ১৪৪২

ডিএসসিসি’র প্রতিটি ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ হবে: মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৪৫ ২১ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৮:৩৫ ২১ জানুয়ারি ২০২১

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস- ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস- ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রত্যেক ওয়ার্ডে একটি করে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নগর ভবনের মেয়র হানিফ অডিটরিয়ামে ডিএসসিসি এলাকায় পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম জোরদারকরণের দ্বিমাসিক পর্যালোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, আমাদের নতুন ১৮টি ওয়ার্ডসহ যেসব ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নেই (কমিউনিটি সেন্টার) সেসব ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণের জন্য আমরা প্রকল্প প্রস্তাবনা প্রণয়ন করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছি। সেই অনুযায়ী আমরা সেসব ওয়ার্ডে নতুন করে পাঁচতলা ভবন করে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ করব। সেসব ভবনে একটি ফ্লোরে আমাদের কাউন্সিলর কার্যালয় থাকবে এবং আরেকটি ফ্লোরে ‘নগদ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র’ করে দেব, যাতে সব কার্যক্রম এক জায়গা থেকে হয়।

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস আরো বলেন, পরিবার পরিকল্পনা একটি অবহেলিত খাত ছিল। কিন্তু আমরা সেটাকে গুরুত্ব দিয়েছি। আমি মনে করি যে, এটি একটি মৌলিক ও প্রাথমিক সেবার জায়গা। এই জায়গাটা আগে নিশ্চিত হলে পরবর্তীতে সেবার জায়গাগুলো আমরা নির্ধারণ করতে পারবো এবং মান বাড়াতে পারবো।

সভায় কয়েকটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা যেসব সংস্থার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম প্রদান করছেন, সেসব সংস্থা কর্পোরেশনের সঙ্গে সমন্বয় করে স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম প্রদান করছে না। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যমান সমন্বয়হীনতা দূর করার জন্য ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, আমি আশাবাদী, আগের তুলনায় সম্পৃক্ততা বেড়েছে, সমন্বয় বেড়েছে। বাকি যতটুকু সমন্বয়হীনতা রয়েছে তা দূর করার জন্য আপনি (প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা) উদ্যোগ গ্রহণ করবেন। আমার সভাপতিত্বে যে দ্বিমাসিক সভা হচ্ছে তার আগেই প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সভাপতিত্বে প্রতি মাসে একটি সভা হওয়া প্রয়োজন। এর মাধ্যমে মাসিক কতটুকু অগ্রগতি অর্জিত হলো সেটা যেমন জানা যাবে, তেমন দ্বিমাসিক এই পর্যালোচনা সভা আরো বেশি ফলপ্রসূ হবে।

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে, সোনার মানুষ গড়ে তুলতে পরিকল্পিত পরিবার একটি আবশ্যকীয় বিষয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে এই কার্যক্রমকে বেগবান করতে এরই মাঝে আমরা মনোযোগ দিয়েছি। এরই ধারাবাহিকতায় আজকের এই দ্বিমাসিক পর্যালোচনা সভা। সেখানে আমাদের মূল কাজই হলো সমন্বয় করে দেয়া। তাই এই কার্যক্রম সমন্বয়ের মাধ্যমে গতিশীল করাই আমাদের লক্ষ্য।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (ডা.) শরীফ আহমেদের সঞ্চালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ সিটির সচিব আকরামুজ্জামান, স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তা, কাউন্সিলর ও এনজিও প্রতিনিধিরা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন