ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলে চাকরির নামে প্রতারণা, আটক ২৩

ঢাকা, রোববার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১,   ফাল্গুন ১৫ ১৪২৭,   ১৫ রজব ১৪৪২

ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলে চাকরির নামে প্রতারণা, আটক ২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩১ ১৫ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৯:৪০ ১৫ জানুয়ারি ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর মিরপুর ও তেজগাঁও এলাকা থেকে ভুয়া চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানের ২৩ প্রতারককে আটক করেছে র‍্যাব-৪। এ সময় ৫০ জন ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর শাহ আলী, পল্লবী, কাফরুল ও তেজগাঁও এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

শুক্রবার র‍্যাব-৪ এর এএসপি জিয়াউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, কিছু ভুয়া নামধারী কোম্পানি চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে র‍্যাব-৪ এর বিশেষ অভিযানে রাজধানীর শাহ আলী, পল্লবী, কাফরুল এবং তেজগাঁও এলাকায় পৃথক অভিযান পরিচালনা করে কয়েকটি ভুয়া চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানের চাকরিপ্রার্থী ৫০ ভুক্তভোগীকে উদ্ধারসহ ২৩ প্রতারককে আটক করা হয়।

আটকরা হলেন তাসলিমা সুলতানা (৩০), সায়মা ইসলাম (২৪), মৌসুমী আক্তার (২৮), মো. সাইফুল ইসলাম (৩০), মো. রাকিব হোসেন (২০), সুমনা খাতুন (১৯), মো. সোহেল ফরাজি (২৯), মোছা. শামীমা আক্তার (২৮), মো. কামরুজ্জামান (৩৩), মো. মশিউর রহমান (২৭), মোছা. সোহাগ (১৯), মো. রুবেল (২৮), মোছা. মমতাজ নায়রী (৪৪), মোছা. শাহীনূর আক্তার (২৭), মো. আব্দুল হামিদ (৩৮), মো. আব্দুল জব্বার (৩৬), গাজিউর রহমান (২২), মো. আব্দুস সালাম (৩৬), মাহামুদা খাতুন (৩০), মাসুম কবির (২৯), মো. ফরিদ ইমরান (২৬), এনামুল হক (২৭) ও মাহমুদা খাতুন (৩০)।  

যেসব অফিসের অভিযান পরিচালনা করা হয় এর মধ্যে রয়েছে- লাইফ গার্ড সিকিউরিটি এন্ড সাপ্লাই লিমিটেড, বিজবন্ড আইটি লিমিটেড এবং ডিজিট-৪ সিকিউরিটি অ্যান্ড লজিস্টিকস সার্ভিসেস লিমিটেড। 

অভিযানের সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ জীবন বৃত্তান্ত ফরম, চাকুরির আবেদন ফরম, রেজিস্টার, সীল মোহর, ভিজিটিং কার্ড, ভাউচার ইত্যাদি উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা তাদের কৃতকর্ম স্বীকার করে জানান, তারা রাজধানীসহ দেশের ভিন্ন এলাকায় অফিস ভাড়া করে বিভিন্ন নামে বেনামে ভূঁইফোড় প্রতিষ্ঠান খুলেন। এর মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মধ্যশিক্ষিত বেকার ও আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল যুবক, যুবতীদের আকর্ষণীয় ও উচ্চ বেতনের চাকরির প্রলোভন দেখাত। পরে প্রশিক্ষণের নামে অর্থ আদায় ও ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেয়।

আটক আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানিয়েছেন র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/ইকেডি/জেডআর